‘ম্যাডাম ফুলি-২’র পরিচালক আসলে কে?

ঢাকা, মঙ্গলবার, ২৪ অক্টোবর ২০১৭ | ৯ কার্তিক ১৪২৪

‘ম্যাডাম ফুলি-২’র পরিচালক আসলে কে?

আহমেদ জামান শিমুল ৭:২৮ অপরাহ্ণ, অক্টোবর ১২, ২০১৭

print
‘ম্যাডাম ফুলি-২’র পরিচালক আসলে কে?

দু’বছর আগে ঘোষণা এসেছিল, ‘ম্যাডাম ফুলি’র সিক্যুয়েল হবে। নির্মাণ করবেন আশিকুর রহমান। দু’বছর পরের খবর, আশিকুর রহমান নন, এটি নির্মাণ করবেন রাশিদ পলাশ।

তবে ছবিটির প্রযোজক ও নায়িকা সিমলা বলছেন, পরিচালক এখনও নির্ধারণ হয়নি।

‘কিস্তিমাত’খ্যাত আশিকুর রহমানের দাবি, তিনি এ ব্যাপারে কিছুই জানেন না।

তিনি বলেন, ‘দু’বছর আগে আমাকে সিমলা আপা তার নিজের প্রোডাকশন হাউজ জ্যোৎস্না এন্টারপ্রাইজের ব্যানারে ছবিটির পরিচালক হিসেবে চুক্তিবদ্ধ করায়। আমাকে সাইনিং মানিও দেওয়া হয়েছিল, এমনকি আমার কাছে এর মানি রিসিটও আছে।’

প্রসঙ্গত, ২০১৫ সালের ৫ জুলাই আশিকুর রহমানকে ‘ম্যাডাম ফুলি ২’র পরিচালক হিসেবে চুক্তিবদ্ধ করানো হয়। এ সম্পর্কিত সংবাদ তখন গণমাধ্যমে প্রকাশিতও হয়।

আশিক আরও বলেন, ‘আমি অস্ট্রেলিয়া চলে যাওয়ার পর তাদের সঙ্গে যোগাযোগ করার চেষ্টা করি। কিন্তু, তারা কোনো সাড়া দেননি। এখন যদি সত্যি সত্যি তারা আমাকে বাদ দিয়ে অন্য কাউকে নেয় এবং সেটি আমাকে না জানিয়ে, তাহলে বিষয়টি বেশ অপমানজনক।’

তিনি বলেন, ‘ছবিটির পরিচালক হিসেবে সবখানে আমার নাম দিয়ে সংবাদ প্রকাশিত হয়েছে। এটি হলে আমি প্রয়োজনে পরিচালক সমিতিতে অভিযোগ করব।’

তবে সিমলা নিজে প্রযোজনার বিষয়টি এড়িয়ে গিয়ে বলেন, ‘ছবিটি আমার মায়ের নামের প্রযোজনা সংস্থা থেকে হচ্ছে এটা ঠিক। কিন্তু, আমি প্রযোজক নই, শুধুই অভিনেত্রী।’

পরিচালক হিসেবে আশিকুর রহমানকে চুক্তিবদ্ধ করিয়েও কেন রাশিদ পলাশকে নেওয়া হলো- এমন প্রশ্নে তিনি বলেন, ‘বর্তমানে ছবির চিত্রনাট্য লেখার কাজ চলছে। আগেই কে পরিচালক, কারা অভিনয় করছেন সব বলতে চাইছি না।’

সিমলা আরও বলেন, ‘আমরা আনুষ্ঠানিকভাবে সংবাদ সম্মেলন করে সবকিছুর ঘোষণা দেব। তখন আপনারা সবকিছু জানতে পারবেন।’

তবে পরিচালনার বিষয়টি স্বীকার করেছেন রাশিদ পলাশ। শুধু তাই নয়, আশিকুর রহমানকে যে আগে পরিচালক হিসেবে নেওয়া হয়েছিল তা-ও তিনি জানেন।

রাশিদ পলাশের ভাষ্যে, ‘আশিক ভাইয়ের সঙ্গে আমার ব্যক্তিগত কোনো বিরোধ নেই। সিমলা আপা এ ছবির একজন প্রযোজক হিসেবে আমাকে পরিচালনা করার জন্য বলেছেন, এতটুকুই বলতে পারি। এর বেশি কিছু বলতে পারছি না।’

‘ম্যাডাম ফুলি-২’র চিত্রনাট্য লিখছেন গোলাম রাব্বানী। নভেম্বরের শেষ নাগাদ ছবিটির শুটিং শুরু হবার কথা রয়েছে। সিমলার বিপরীতে কে অভিনয় করবেন, তা এখনও ঠিক হয়নি।

১৯৯৯ সালে প্রয়াত নির্মাতা শহীদুল ইসলাম খোকনের পরিচালনায় ‘ম্যাডাম ফুলি’ মুক্তি পায়। ছবিটির জন্য সিমলা সে বছর ‘সেরা অভিনেত্রী’ হিসেবে জাতীয় চলচ্চিত্র পুরস্কার পান।

এজেডএস/আইএম

print
 

আলোচিত সংবাদ

nilsagor ad