সুস্থ হয়ে উঠছেন এটিএম শামসুজ্জামান (ভিডিও)

ঢাকা, সোমবার, ১৭ ফেব্রুয়ারি ২০২০ | ৪ ফাল্গুন ১৪২৬

সুস্থ হয়ে উঠছেন এটিএম শামসুজ্জামান (ভিডিও)

জেষ্ঠ্য প্রতিবেদক: ১:২৫ অপরাহ্ণ, ডিসেম্বর ০১, ২০১৯

ঢাকাই চলচ্চিত্রের বিশিষ্ট অভিনেতা এটিএম শামসুজ্জামান অনেকটা সুস্থ হয়ে উঠেছেন। শিগগিরই তাকে বাসায় নেয়া যাবে বলে আশা করছেন প্রবীণ এই অভিনেতার পরিবারের সদস্যরা।

এটিএম শামসুজ্জামানের মেয়ে কোয়েল পরিবর্তন ডটকমকে জানান, পেটে সমস্যা ও মলত্যাগজনিত জটিলতার কারনে গত সোমবার তার বাবাকে বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব মেডিকেল বিশ্ববিদ্যালয় (বিএসএমএমইউ) হাসপাতালে ভর্তি করা হয়। চিকিৎসা নেবার পর তিনি মোটামুটি সুস্থতার দিকে। তার নাকের নল খুলে দেয়া হয়েছে। মুখেই স্যুপ ও ডাবের পানি খেতে পারছেন। মেডিসিন বিশেষজ্ঞ প্রফেসর ডাঃ আতিকুর রহমানের অধীনে চিকিৎসাধীন রয়েছেন এই অভিনেতা।

এটিএম শামসুজ্জামানের মেঝো ছেলে এটিএম মনিরুজ্জামান কেতন বলেন, বাবা অনেকটা ভাল আছেন। খুব শিগগিরই হয়তো বাসায় যেতে পারবেন।

পারিবারিক সূত্রে জানা গেছে, এটিএম শামসুজ্জামান দীর্ঘদিন যাবত বার্ধক্যজনিত নানা জটিলতায় ভুগছেন। গ্যাস্ট্রিক ও মলত্যাগ জনিত জটিলতায় তাকে এর আগেও হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছিল। আবার একই সমস্যা শুরু হলে চিকিৎসক তাকে হাসপাতালে ভর্তির পরামর্শ দেন।

চিকিৎসা নেবার পর এখন এটিএম শামসুজ্জামানের অবস্থা আগের চেয়ে অনেক ভাল। পরীক্ষা নিরীক্ষার রিপোর্ট সব ভাল এসেছে।এখন তাকে অবজার্ভেশনে রাখা হয়েছে। ডাক্তার বলেছেন ভয়ের কোন কারণ নেই।

এর আগে গত ২৬ এপ্রিল রাজধানীর আজগর আলী হাসপাতালে ভর্তি করা হয় এই অভিনেতাকে । পরদিন অবস্থার অবনতি হলে তার অস্ত্রোপচার করা হয় । শ্বাসপ্রশ্বাস স্বাভাবিক না থাকায় ৩০ এপ্রিল নিবিড় পরিচর্যা কেন্দ্রে (আইসিইউ) রাখা হয় এবং লাইফ সাপোর্ট দেয়া হয়।

এরপর গত ১৩ মে তার চিকিৎসার দায়িত্ব নেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা । প্রধানমন্ত্রীর পক্ষ থেকে ১০ লাখ টাকার চেক দেয়া হয়। তখন তাকে স্থানান্তর করা হয় বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব বিশ্ববিদ্যালয় হাসপাতালে। সুস্থ হয়ে প্রায় চার মাস পর বাসায় ফিরেছিলেন এটিএম শামসুজ্জামান।

প্রসঙ্গত, এটিএম শামসুজ্জামান ১৯৪১ সালের ১০ সেপ্টেম্বর নোয়াখালীর দৌলতপুরে জন্মগ্রহণ করেন। তিনি জীবনের দীর্ঘসময় কাটিয়েছেন পুরান ঢাকায়। ১৯৬১ সালে সহকারী পরিচালক হিসেবে সিনেমা জগতে প্রবেশ করেন।

পরিচালক নারায়ণ ঘোষ মিতার পরিচালনায় 'জলছবি' চলচ্চিত্রের জন্য প্রথম কাহিনী ও চিত্রনাট্য লিখেন। এরপর এখন পর্যন্ত শতাধিক চিত্রনাট্য ও কাহিনী লিখেছেন তিনি। তবে অভিনেতা হিসেবে পর্দায় পা রাখেন ১৯৬৫ সালের দিকে।

এটিএম শামসুজ্জামান অভিনয়ে পাঁচবার জাতীয় চলচ্চিত্র পুরস্কার পেয়েছেন। শিল্পকলায় অবদানের জন্য ২০১৫ সালে পান রাষ্ট্রীয় সর্বোচ্চ সম্মাননা একুশে পদক।

এসবিসি/পিএসএস

 

তারায় তারায়: আরও পড়ুন

আরও