গরুর রশি ছেড়া প্রতিযোগিতা

ঢাকা, মঙ্গলবার, ২৩ জানুয়ারি ২০১৮ | ৯ মাঘ ১৪২৪

গরুর রশি ছেড়া প্রতিযোগিতা

ফরিদপুর প্রতিনিধি ৯:১১ অপরাহ্ণ, জানুয়ারি ১৩, ২০১৮

print
গরুর রশি ছেড়া প্রতিযোগিতা

লাঠি খেলা, ঘোড় দৌড়, গরু দৌড় আবহমান বাংলার ঐতিহ্যবাহী কিছু খেলার নাম। গরুর রশি ছেড়া প্রতিযোগিতা তেমনি একটি খেলা। যা পৌষ সংক্রান্তি উপলক্ষে গ্রাম বাংলার বিভিন্ন মেলায় দেখা যেত। এই খেলা এখন তেমন চোখে পড়ে না। হারিয়ে যাওয়া এমনই প্রতিযোগিতা অনুষ্ঠিত হয়ে গেল ফরিদপুরের চরভদ্রাসনে।

পৌষ সংক্রান্তী উপলক্ষে শনিবার বিকেলে গরুর রশি ছেড়ার এই প্রতিযোগিতা অনুষ্ঠিত হয় চর হরিরামপুর ইউনিয়নের বিসাই মাতব্বরের ডাঙ্গী’র মাঠে। হারিয়ে যাওয়া ঐতিহ্যবাহী এই খেলা দেখতে ভীর করেছিলেন কয়েক হাজার মানুষ।

চর হরিরামপুর ইউনিয়নের চেয়ারম্যান মো. আমির হোসেন খানের সভাপতিত্বে গরু দৌড় প্রতিযোগিতা অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন ফরিদপুর-৪ আসনের সংসদ সদস্য মজিবুর রহমান চৌধুরী নিক্সন।

প্রধান অতিথির বক্তব্যেও সংসদ সদস্য নিক্সন চৌধুরী আয়োজক কমিটিকে ধন্যবাদ দিয়ে বলেন ‘আমি আগে কখনও এমন সুন্দর গরুর রশি ছেড়া প্রতিযোগিতা দেখিনি। আজ আমি এটি উপভোগ করতে এসেছি। এখানে সকল বয়সের হাজার হাজার নারী পুরুষ এসে আনন্দ উপভোগ করছে। আমাদের যুব সমাজ বর্তমানে মাদকের ভয়াল ছোবলের শিকার, আমি মনে করি গ্রাম বাংলার পুরোন এ ঐতিহ্য প্রতিটি উপজেলায় আয়োজন করা উচিৎ। যাতে যুব সমাজ লেখা পড়ার পাশাপাশি খেলা ধুলায় মনোনিবেস করে মাদকের ভয়াল থাবা হতে মুক্ত হতে পারে।’

গ্রাম বাংলার একেক অঞ্চলে ভিন্ন ভিন্ন নামে এই চিরচেনা খেলা পরিচিত। কোথাও গরুদৌড়, গরুর রশি ছেড়া, আড়ং নামেও এই প্রতিযোগিতা বাঙালীর ইতিহাসকে মনে করিয়ে দেয়।

প্রতিযোগিতা উপলক্ষে দুপুরের পর থেকে সৌখিন গরুর মালিকরা বাদ্যযন্ত্র, লাঠি খেলোয়াড় ও তাদের ষাঁড় নিয়ে হাজির হয় এই মাঠে। দেখতে দেখতে কানায় কানায় পূর্ণ হয়ে যায় রাস্তা ও মাঠ।

স্থানীয়রা জানায়, বিগত ৩ বছর যাবত এই মাঠে গরুর রশি ছেড়া প্রতিযোগিতা হচ্ছে। এর আগে প্রায় ১৮/১৯ বছর পূর্বে উপজেলার সদর ইউনিয়নের বারই মোল্যার চটান নামক স্থানে যাকজমকপূর্ন ভাবে হতো এই গরু দৌড় প্রতিযোগিতা। তাই দীর্ঘ বছর পর এমন আড়ং দেখতে আসে নারী, শিশু ও বৃদ্ধ থেকে শুরু করে সকল বয়সের মানুষ।

অনুষ্ঠানে অন্যান্যের মধ্যে চরভদ্রাসন উপজেলা ভাইস চেয়ারম্যান মো. কাউসার হোসেন, গাজিরটেক ইউনিয়নের চেয়ারম্যান মো. ইয়াকুব আলী, হরিরামপুরের সাবেক ইউপি চেয়ারম্যান কে.এম.ওবায়দুল বারি দিপু, আনোয়ার আলী মোল্যা, মো. বাবুল খান, মো. বজলু মৃধা, মো. জুলহাস মেম্বার, মো. মোশাররফ হোসেন, মো. মোতালেব মোল্যাসহ আরো অনেকে উপস্থিত ছিলেন।

প্রতিযোগিতায় মোট ৪২টি গরু অংশ নেয়। এর মধ্যে ১ম বিজয়ী ও ২য় বিজয়ী গরুর মালিককে টেলিভিশন ও ৩য় বিজয়ী মালিককে গ্যাসের চুলা উপহার দেয়া হয়। অংশ নেয়া অন্য সকল গরুর মালিককে সান্তনা পুরস্কার দেয়া হয়।

টিআইএইচ/এসএফ

print
 
.

আলোচিত সংবাদ

nilsagor ad