করোনা: টাঙ্গাইলে সামাজিক দূরুত্ব বজায়ে পুলিশি এ্যাকশন
Back to Top

ঢাকা, মঙ্গলবার, ৩১ মার্চ ২০২০ | ১৬ চৈত্র ১৪২৬

করোনা: টাঙ্গাইলে সামাজিক দূরুত্ব বজায়ে পুলিশি এ্যাকশন

টাঙ্গাইল প্রতিনিধি ১০:৫০ অপরাহ্ণ, মার্চ ২৫, ২০২০

করোনা: টাঙ্গাইলে সামাজিক দূরুত্ব বজায়ে পুলিশি এ্যাকশন

টাঙ্গাইলে সামাজিক দূরুত্ব বজায়ের সরকারি নির্দেশনা অমান্য করায় পুলিশি এ্যাকশন শুরু হয়েছে। বুধবার বিকেলে ভূঞাপুর উপজেলার বিভিন্নস্থানে আইন অমান্য করে ঘরের বাহিরে অযাচিত চলাফেরা, মাস্ক পরিধান না এবং দোকানপাট খোলা রাখায় তাদের বিরুদ্ধে এই অভিযানো হয়।

এ বিষয়ে ভূঞাপুর থানার ওসি রাশিদুল ইসলাম বলেন, আমরা সাধারণ মানুষের মধ্যে বেশ কিছুদিন সচেনতা মূলক প্রচার ও ঘরে থাকার অনুরোধ করে আসছিলাম। এর পরেও কিছু মানুষ অযাচিত ঘুরা-ফিরা করছিলেন। তাদেরকে ঘরে ফেরাতে ও সামাজিক দূরুত্ব বজায়ের সরকারি নির্দেশ অমান্য করায় সতর্ক করা হচ্ছে। এ ধরনের অভিযান অব্যহত থাকবে বলে তিনি জানান।

উল্লেখ্য, দেশে গত ২৪ ঘণ্টায় আরও একজন করোনাভাইরাসে আক্রান্ত হয়ে মারা গেছেন। তবে সুস্থ হয়েছেন আরও দুজন। সবমিলিয়ে সুস্থ হয়ে উঠেছেন ৭ জন।

বুধবার দুপুরে স্বাস্থ্য অধিদফতরের রোগতত্ত্ব, রোগনিয়ন্ত্রণ ও গবেষণা প্রতিষ্ঠানের (আইইডিসিআর) পরিচালক ডা. মীরজাদী সেব্রিনা ফ্লোরা অনলাইন লাইভ ব্রিফিংয়ে এ তথ্য জানান।

আইইডিসিআর পরিচালক মীরজাদী সেব্রিনা ফ্লোরা এ তথ্য নিশ্চিত করে বলেন, বাংলাদেশে এ পর্যন্ত মোট পাঁচজন এ ভাইরাসে আক্রান্ত হয়ে মারা গেছেন। গত ২৪ ঘণ্টায় নতুন কেউ আক্রান্ত হয়নি। তবে আক্রান্তদের মধ্যে এ পর্যন্ত সুস্থ হয়েছেন সাতজন।

বাংলাদেশে এ ভাইরাস শনাক্ত হয়েছে গত ৮ মার্চ। এরপর দিন দিন এ ভাইরাসে সংক্রমণের সংখ্যা বেড়েছে। সর্বশেষ হিসাবে দেশে এখন পর্যন্ত ৩৯ জন আক্রান্ত হয়েছেন, মারা গেছেন পাঁচজন।

করোনার বিস্তাররোধে এরই মধ্যে দেশের সব শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান বন্ধ ঘোষণা করা হয়েছে। কড়াকড়ি আরোপ করা হয়েছে সভা-সমাবেশ ও গণজমায়েতের ওপর। চারটি দেশ ও অঞ্চল ছাড়া সব দেশ থেকেই যাত্রী আসা বন্ধ করে দেয়া হয়েছে।

করোনাভাইরাসের সংক্রমণরোধে আগামী ২৬ মার্চ থেকে ৪ এপ্রিল পর্যন্ত দেশের সরকারি-বেসরকারি সব ধরনের প্রতিষ্ঠান বন্ধ ঘোষণা করেছে সরকার। বন্ধ করে দেয়া হয়েছে বাস, ট্রেন, লঞ্চসহ সব ধরনের গণপরিবহন। এ কার্যক্রমে স্থানীয় প্রশাসনকে সহায়তার জন্য দেশের সব জেলায় মোতায়েন করা হয়েছে সশস্ত্র বাহিনী।

এএএন/জেডএস

 

সমগ্রবাংলা: আরও পড়ুন

আরও