বাবা হত্যায় ছেলেসহ চারজনের মৃত্যুদণ্ড
Back to Top

ঢাকা, শুক্রবার, ৩ এপ্রিল ২০২০ | ২০ চৈত্র ১৪২৬

বাবা হত্যায় ছেলেসহ চারজনের মৃত্যুদণ্ড

  টাঙ্গাইল প্রতিনিধি ৩:৪৯ অপরাহ্ণ, ফেব্রুয়ারি ২৩, ২০২০

বাবা হত্যায় ছেলেসহ চারজনের মৃত্যুদণ্ড

টাঙ্গাইলের মির্জাপুরে বৃদ্ধ আব্দুল আওয়াল (৭০) হত্যা মামলায় ছেলেসহ ৪ জনকে ফাঁসির আদেশ দিয়েছেন আদালত। এছাড়া প্রত্যেক আসামিকে ২০ হাজার টাকা করে জরিমানা করা হয়।

রোববার দুপুরে টাঙ্গাইলের অতিরিক্ত জেলা ও দায়রা জজ দ্বিতীয় আদালতের বিচারক ফারহানা ফেরদৌস এ রায় দেন।

দণ্ডপ্রাপ্তরা হলেন মির্জাপুর উপজেলার বাংগুরী দক্ষিণপাড়া গ্রামের নিহতের ছেলে আসাদুজ্জামান মিয়া (৪২), নাগরপুর উপজেলার ভাড়রা গ্রামের মৃত হযরত আলীর ছেলে লুকিম উদ্দিন (৪০), একই গ্রামের জসিম মিয়ার ছেলে আব্দুল মান্নান (৪০) এবং মীর কুটিয়া গ্রামের মৃত আব্দুল জলিল মিয়ার ছেলে জহিরুল ইসলাম (৫৫)।

দণ্ডপ্রাপ্ত আসামি সবাই পলাতক রয়েছেন। মামলার অপর এক আসামি আব্দুল আওয়াল (৪০) বিরুদ্ধে কোনো অভিযোগ না পাওয়ায় পুলিশ তাকে অব্যহতি দিয়ে আদালতে অভিযোগপত্র দাখিল করে।

মামলার বিবরণে জানা যায়, আব্দুল আওয়াল মির্জাপুর উপজেলার বাংগুরী দক্ষিণপাড়া গ্রামে বসবাস করতেন।  ২০১৩ সালের ৩০ জুন রাত একটার দিকে নিজ বাড়িতে খুন হন আব্দুল আওয়াল। পরে নিহতের ছেলে আসাদুজ্জামান মিয়া বাদী হয়ে থানায় মামলা করেন। পরে পুলিশের সন্দেহ হলে জিজ্ঞাসাবাদের জন্য নিহতের ছেলেকে আটক করে।

জিজ্ঞাসাবাদে নিহতের ছেলে আসাদুজ্জামান মিয়া পুলিশকে জানায় বাবার সাথে জমি নিয়ে বিরোধের জের ধরে অন্যদের সহায়তায় তাকে প্রথমে শ্বাসরোধ করে বেল্ড দিয়ে গলাকেটে হত্যা করে। পরবর্তীতে ওই বছরের ১ আগস্ট মির্জাপুর থানার তৎকালীন এসআই শ্যামল কুমার দত্ত তদন্ত করে হত্যাকাণ্ডের সাথে জড়িত নিহতের ছেলে আসাদুজ্জামান মিয়াসহ পাঁচজনের বিরুদ্ধে মির্জাপুর থানায় মামলা করেন।

পাঁচ আসামির মধ্যে দুইজন আদালত থেকে জামিন নিয়ে পলাতক রয়েছেন। মামলা অপর দুই আসামি হত্যাকাণ্ডের পর থেকেই পালিয়ে বেড়াচ্ছেন। আসামিদের অনুপস্থিতিতেই আদালত এই ফাঁসির দণ্ড দেন।

টাঙ্গাইল আদালতের পাবলিক প্রসিকিউটর (পিপি) এস আকবর খান বলেন, অপরাধ করে যে কেউ পার পায় না তা এই রায়ের মধ্যে দিয়ে ন্যায়বিচার নিশ্চিত হয়েছে।

রাষ্ট্রপক্ষে মামলা পরিচালনা করেন অতিরিক্ত পিপি মহসিন শিকদার। আসামি পক্ষে ছিলেন আজহার হোসেন।

এইচআর

 

সমগ্রবাংলা: আরও পড়ুন

আরও