মুমিনুল-মুশফিকের সেঞ্চুরি, ৬ টেস্ট পর লিড
Back to Top

ঢাকা, বৃহস্পতিবার, ৯ এপ্রিল ২০২০ | ২৫ চৈত্র ১৪২৬

মুমিনুল-মুশফিকের সেঞ্চুরি, ৬ টেস্ট পর লিড

পরিবর্তন ডেস্ক ২:১০ অপরাহ্ণ, ফেব্রুয়ারি ২৪, ২০২০

মুমিনুল-মুশফিকের সেঞ্চুরি, ৬ টেস্ট পর লিড

বাংলাদেশ ক্রিকেটের উন্নতির যাত্রায় হঠাৎই ছন্দপতন ঘটেছে। টি-টোয়েন্টি, ওয়ানডের তুলনায় সেই ছন্দপতনটা যেন টেস্টেই বেশি। অবশেষে সেই টেস্ট দিয়েই যেন আবার পথে ফেরার ইঙ্গিত। ৬ টেস্ট পর প্রথম ইনিংসে লিড পাওয়া অন্তত সেটাই প্রমাণ করে। মিরপুরে জিম্বাবুয়ের পক্ষে ৬ টেস্ট পর লিড পেয়েছে বাংলাদেশ।

এর আগে বাংলাদেশ লিড পেয়েছিল ২০১৮ সালের নভেম্বরে, এই মিরপুরেই ওয়েস্ট ইন্ডিজের বিপক্ষে। বাংলাদেশের প্রথম ইনিংসে ৫০৮ রানের জবাবে মাত্র ১১১ রানেই গুটিয়ে যায় সফরকারী ওয়েস্ট ইন্ডিজের প্রথম ইনিংস। বাংলাদেশ পায় ৩৯৭ রানের বিশাল লিড। শেষ পর্যন্ত সাকিব আল হাসানের বাংলাদেশ ম্যাচটাও জিতেছিল ইনিংস ও ১৮৪ রানের বিশাল ব্যবধানে।

এরপর ৬টি টেস্ট খেললেও বাংলাদেশ আর লিডের দেখা পায়নি। বরং তালগোল পাকানো হতাশার ব্যাটিংয়ে হেরেছে ৬ টেস্টেই। সেই ৬ টেস্টের মধ্যে দুটি টেস্ট ছিল নিউজিল্যান্ডের বিপক্ষে, আফগানিস্তানের বিপক্ষে একটি, ভারতের বিপক্ষে দুটি এবং একটি পাকিস্তানের বিপক্ষে।

অবশেষে অতিথি জিম্বাবুয়ের বিপক্ষে সেই ব্যর্থতার ধারায় ছেদ টানল মুমিনুল হকের দল। দলকে দীর্ঘ দিন পর লিডের স্বাদ এনে দেওয়ার মূলে অধিনায়ক মুমিনুলের অবদানও অনেক। তার ব্যাট ছুঁয়েই লিডের মুখ দেখেছে বাংলাদেশ। আজ তৃতীয় দিনের অষ্টম ওভারেই ডোনাল্ড তিরিপানোর শর্ট বলে ২ রান নেন মুমিনুল। তাতেই প্রথম ইনিংসে জিম্বাবুয়ের করা ২৬৫ রান টপকে লিড পায় বাংলাদেশ। পরে সেই লিডটা ফুলেফেঁপে এরই মধ্যে হয়ে গেছে ১৬০ রানের। এখনো বাংলাদেশের হাতে রয়েছে ৫টি উইকেট। কারণ, জিম্বাবুয়ের ২৬৫ রানের জবাবে এই প্রতিবেদন লেখার সময় বাংলাদেশের সংগ্রহ ৫ উইকেটে ৪২৫ রান।

অধিনায়ক মুমিনুলের ব্যাট ছুঁয়েই এসেছে লিড। তবে সেই লিডটা বড় করতে তার পাশাপাশি মুশফিকুর রহিমের ভূমিকা সবচেয়ে বেশি। দলকে হারানো স্বাদ এনে দিতে দুজনেই সোয়া বছর পর করেছেন সেঞ্চুরি। অধিনায়ক মুমিনুল ১৩২ রানে থামলেও মুশফিকের ব্যাট এখনো জ্বলছে। এই প্রতিবেদন লেখার সময় তিনি ব্যাট করছিলেন ১৪২ রানে। মানে ক্যারিয়ারের চতুর্থ দেড়শ পেরোনো ইনিংসের পথে রয়েছেন তিনি।

সকালে দলকে লিড এনে দেওয়ার কিছুক্ষণ পরই সেঞ্চুরি পূর্ণ করেন মুমিনল। যেটি তার ক্যারিয়ারের নবম টেস্ট সেঞ্চুরি এবং অধিনায়ক হিসেবে প্রথম। যে সেঞ্চুরিটা তিনি করলেন দীর্ঘ সোয়া বছর পর। টেস্টে মুমিনুল সর্বশেষ সেঞ্চুরি করেছিলেন ২০১৮ সালের নভেম্বরে। ওয়েস্ট ইন্ডিজের বিপক্ষে চট্টগ্রাম টেস্টে।

মুমিনুলের দেখানো পথে হেঁটে পরে সেঞ্চুরি তুলে নিয়েছেন নিরাপত্তা শঙ্কায় পাকিস্তান সফরে না যাওয়া মুশফিকও। যেটি তার ক্যারিয়ারের সপ্তম টেস্ট সেঞ্চুরি। মুশফিকও নিজের সর্বশেষ টেস্ট সেঞ্চুরিটা করেছিলেন ২০১৮ সালের নভেম্বরেই। এই জিম্বাবুয়ের বিপক্ষেই ঢাকা টেস্টে খেলেছিলেন ২০৯ রানের অপরাজিত এক ইনিংস।

৩ উইকেটে ২৪০ রান নিয়ে তৃতীয় দিনের খেলা শুরু করেছে বাংলাদেশ। মানে মুমিনুল-মুশফিকের ব্যাটে চড়ে তৃতীয় দিনে এরই মধ্যে ১৮৫ রান যোগ করেছে। হারিয়েছে ২টি উইকেট। মুমিনুলের পর মাত্র ১৭ রান করেই ফিরে গেছেন মোহাম্মদ মিঠুন। লিটন দাসকে নিয়ে নিজের লড়াইটা চালিয়েই যাচ্ছেন মুশফিক।

এর আগে যে ৬টি টেস্ট সেঞ্চুরি করেছেন মুশফিক, তার তিনটিতেই তিনি রূপ দিয়েছেন দেড়শ পেরোনো ইনিংস। দুটিকে আবার রুপ দিয়েছেন ডাবল সেঞ্চুরিতে। এখনো পর্যন্ত যেভাবে ধৈর্য আর দায়িত্বশীলতার সঙ্গে ব্যাট করছেন, তাতে মুশফিকের ‘তৃতীয় ডাবল’-এর স্বপ্ন দেখাই যায়। মুশফিক পারবেন স্বপ্নটা সত্যি করতে?

কেআর

 

খেলাধুলা: আরও পড়ুন

আরও