দুই বাধা পেরিয়ে যুব বিশ্বকাপে জয়ে শুরু যুবাদের

ঢাকা, মঙ্গলবার, ২৫ ফেব্রুয়ারি ২০২০ | ১৩ ফাল্গুন ১৪২৬

দুই বাধা পেরিয়ে যুব বিশ্বকাপে জয়ে শুরু যুবাদের

পরিবর্তন ডেস্ক ১০:২৫ পূর্বাহ্ণ, জানুয়ারি ১৯, ২০২০

দুই বাধা পেরিয়ে যুব বিশ্বকাপে জয়ে শুরু যুবাদের

দক্ষিণ আফ্রিকার পচেফস্ট্রুমে অনূর্ধ্ব-১৯ বিশ্বকাপে নিজেদের প্রথম ম্যাচটিতে বাংলাদেশের যুবাদের সামনে বাঁধা ছিল দুটি। প্রথম বাঁধা প্রতিপক্ষ জিম্বাবুয়ে। দ্বিতীয় বাঁধা হয়ে দাঁড়িয়েছিল বৃষ্টি। কিন্তু কোনো বাঁধাই বাংলাদেশের যুবাদের পথ আটকাতে পারেনি। দুটি বাঁধাই জয় করে যুব বিশ্বকাপে উড়ন্ত শুরু করেছে বাংলাদেশের যুবারা। ডাকওয়ার্থ লুইস পদ্ধতিতে আকবর আলির দল তুলে নিয়েছে ৯ উইকেটের সহজ জয়।

পচেফস্ট্রুমের মেঘলা আকাশের দিকে তাকিয়ে টস জিতেও প্রথমে ফিল্ডিং নেন বাংলাদেশের অনূর্ধ্ব-১৯ দলের অধিনায়ক আকবর আলি। তার সিদ্ধান্তকে পঞ্চম ওভারেই যৌক্তিক প্রমাণ করেন তানজিম হাসান সাকিব। দুর্দান্ত এক ডেলিভারিতে তিনি ফিরিয়ে দেন জিম্বাবুয়ের যুব দলের ওপেনার ওয়েসলি মাধেভেরেকে। দলকে ২৯ রানে রেখে ব্যক্তিগত ১৯ রান করে ফিরে যান মাধেভেরে।

সেখান থেকে জিম্বাবুয়ের যুবারা ৬৮ রানে পৌঁছে যায় দ্বিতীয় উইকেট জুটিতে। এরপর জিম্বাবুয়ের ইনিংসের উপর দিয়ে একটা ঝড় বইয়ে দেন বাংলাদেশের যুবা দলের বোলাররা। মৃত্যুঞ্জয় চৌধুরী, শরিফুল ইসলাম, শামিম হাসান ও রকিবুল হাসান মিলে পরের ২৪ রানের মধ্যেই জিম্বাবুয়ের আরও ৪ উইকেট তুলে নেন। ফলে ১ উইকেটে ৬৮ থেকে জিম্বাবুয়ে মুহূর্তেই পরিণত হয় ৮৮ রানের দলে।

বাংলাদেশের যুবাদের জয়ের রাস্তাটা প্রশস্ত হয়ে যায় তখনই। কিন্তু সেখান থেকে জিম্বাবুয়ে ৬ উইকেট হারিয়ে ২৮.১ ওভারে ১৩৭ রানে যেতেই আরেক বাঁধার সামনে পড়ে বাংলাদেশ। বৃষ্টি এসে ভাসিয়ে দেয় জিম্বাবুয়ের ইনিংস। ফল, ডাকওয়ার্থ পদ্ধতিতে বাংলাদেশের যুবাদের জয়ের লক্ষ্য মাত্র নির্ধারিত হয় ২২ ওভারে ১৩০ রান।

২২ ওভারে ১৩০, লক্ষ্য খুব সহজ নয়। আকবর আলিদের জন্য সেটি আরও কঠিন ছিল আকাশ মেঘলা থাকায়। কিন্তু কোনোটিই বাঁধা হতে পারেনি। যেকোনো সময় নামতে পারে বৃষ্টি। বাংলাদেশের দুই ওপেনার তাই শুরু থেকেই ঝড় তোলে। তানজিম হাসান ও পারভেজ হাসান ইমন মিলে মাত্র দুই ওভারেই তুলে ফেলেন ৪১ রান!

এই ঝড় অবশ্য তৃতীয় ওভারেই প্রথম বলেই একটু ধাক্কা খায়। সমান ৩টি করে ছক্কা-চারে মাত্র ১০ বলে ৩২ রান করে ফিরে যান তানজিম হাসান। তবে এরপর আর কোনো বিপদ নয়। বরং অন্য ওপেনার পারভেজ হাসান ইমন ও মাহমুদুল হাসান জয় মিলে ৬৪ বল বাকি থাকতেই দলকে পৌঁছে দিয়েছেন লক্ষ্যে। মানে বাংলাদেশের যুবারা মাত্র ১ উইকেট হারিয়ে ১১.৮ ওভারেই তুলে নিয়েছেন প্রয়োজনীয় ১৩২ রান।

পারভেজ হাসান ২টি ছক্কা ও ৫ চারে মাত্র ৩৩ বলে করেছেন অপরাজিত ৫৮ রান। মাহমুদুল হাসান ২৬ বলে করেছেন অপরাজিত ৩৮ রান। যে ইনিংসের পথে তিনি মেরেছেন ৫টি চারের মার।

৩৩ বলে অপরাজিত ৫৮ রানের ইনিংসের সুবাদে ম্যাচসেরার পুরস্কারটি পেয়েছেন পারভেজ হাসান ইমন। বাংলাদেশের পরের ম্যাচ ২১ জানুয়ারি, স্কটল্যান্ডের বিপক্ষে।

কেআর

 

খেলাধুলা: আরও পড়ুন

আরও