টস হেরে ব্যাটিংয়ে বাংলাদেশ

ঢাকা, সোমবার, ১৬ জুলাই ২০১৮ | ১ শ্রাবণ ১৪২৫

টস হেরে ব্যাটিংয়ে বাংলাদেশ

পরিবর্তন ডেস্ক ৮:৪৯ পূর্বাহ্ণ, জানুয়ারি ১৩, ২০১৮

print
টস হেরে ব্যাটিংয়ে বাংলাদেশ

শনিবার নিউজিল্যান্ডে শুরু হয়েছে অনূর্ধ্ব-১৯ ক্রিকেট বিশ্বকাপের ১১তম পর্ব। প্রথম দিনেই মাঠে নেমেছে বাংলাদেশ। প্রতিপক্ষ অপেক্ষাকৃত দুর্বল দল নামিবিয়া। তবে উদ্বোধনী দিনে অনুষ্ঠিত হবে আরও তিনটি ম্যাচ। পাকিস্তানের মুখোমুখি হবে প্রতিবেশী দেশ আফগানিস্তানের। জিম্বাবুয়ে মোকাবেলা করবে পাপুয়া নিউগিনির বিপক্ষে। আর স্বাগতিক নিউজিল্যান্ড লড়াই করবে বর্তমান চ্যাম্পিয়ন ওয়েস্ট ইন্ডিজের বিপক্ষে। তবে বাংলাদেশি ক্রিকেট ভক্তদের চোখ থাকবে সাইফদের ম্যাচেই। ওভালের লিনকন গ্রাউন্ডে ম্যাচটি শুরু হয়ে গেছে। টস জিতে ফিল্ডিং করার সিদ্ধান্ত নিয়েছে নামিবিয়া। রিপোর্ট লেখার সময় ৩ ওভার শেষে যুবা টাইগারদের সংগ্রহ বিনা উইকেটে ২৭ রান।

শক্তির বিচারে যুবাদের দলটি বেশ অভিজ্ঞ। দলের বেশ কয়েকজন খেলোয়াড়ের রয়েছে ঘরোয়া ক্রিকেটের সেরা আসর প্রিমিয়ার লিগে খেলার অভিজ্ঞতা। আছে বিপিএলের মতো আন্তর্জাতিক টুর্নামেন্টে খেলার অভিজ্ঞতাও। আর অধিনায়ক সাইফ হাসান, পিনাক ঘোষ, কাজী অনিকরা খেলেছেন আরও একটি যুব বিশ্বকাপ। তারপরও নিউজিল্যান্ডে পৌঁছে এখন পর্যন্ত জয়ের মুখ দেখেনি বাংলাদেশ অনূর্ধ্ব-১৯ দল। আফগানিস্তানের বিপক্ষে তারা হেরে যায় ৫০ রানের ব্যবধানে। এর আগে স্থানীয় দল ওটোগা ‘এ’ দলের বিপক্ষেও দুটি ম্যাচের দুটিতেই হারে। তাই নিউজিল্যান্ডে গিয়ে সাইফদের আত্মবিশ্বাস তলানিতে গিয়ে পৌঁছেছে। একই অবস্থা অবশ্য নামিবিয়ারও। প্রস্তুতি ম্যাচে জয় পায়নি তারাও।

তবে টুর্নামেন্টের শুরুতেই বৃষ্টির কারণে জেগেছে শঙ্কা। গত কয়েকদিন ধরে নিয়মিত বৃষ্টি হচ্ছে নিউজিল্যান্ডে। আগের দুইদিন তো বৃষ্টির কারণে প্রস্তুতি ম্যাচই হতে পারেনি। পাকিস্তানের বিপক্ষে বাংলাদেশের প্রস্তুতি ম্যাচটিও যায় বৃষ্টির পেটে। আবহাওয়ার পূর্বাভাসে ক্রাইস্টচার্চ ও লিঙ্কনে বৃষ্টিপাতের সম্ভাবনা রয়েছে শনিবারও। তবে দুপুরের পর কিছুটা কমতে পারে বলেই জানানো হয়েছে। বৃষ্টিতে ম্যাচ না হলে বড় ক্ষতি হয়ে যাবে যুব টাইগারদের। কারণ শক্তির বিচারে নামিবিয়ার চেয়ে যোজন যোজন এগিয়ে আছে সাইফ হাসানের দল।

শক্তিতে নামিবিয়ার চেয়ে অনেক এগিয়ে থাকলেও বাংলাদেশের জন্য নামিবিয়াকে হালকাভাবে নেওয়ার কোন সুযোগ নেই। কারণ এটা সাইফদের ঘুরে দাঁড়ানোর লড়াই। লড়াই আত্মবিশ্বাস ফিরে পাওয়ার। তবে মাঠে নামার আগে ইতিহাসকে সঙ্গেই পাচ্ছে যুবারা। এ পর্যন্ত নামিবিয়ার সঙ্গে ৫ বার মোকাবেলা করেছে সাইফদের পূর্বসূরিরা। আর তার ৫টিতেই জয় তুলে নিয়েছিল তারা। গত বিশ্বকাপেও বাংলাদেশের গ্রুপে ছিল দলটি। আর সে ম্যাচে নামিবিয়াকে মাত্র ৬৫ রানে গুড়িয়ে দিয়ে মাত্র ২ উইকেট হারিয়ে জিতেছিল মেহেদী হাসান মিরাজের দল। তাই শতভাগ জয়ের রেকর্ড ধরে রাখতেই মাঠে নামবে যুবা টাইগাররা।

যুব বিশ্বকাপে গতবারই সেরা সাফল্য পেয়েছিল বাংলাদেশ। ঘরের মাঠে সেমিফাইনাল খেলেছিল মিরাজ-শান্ত-সাইফুদ্দিনরা। সেমিফাইনালে একটি ভুল সিদ্ধান্তে শেষ হয় তাদের বিশ্বকাপ জয়ের স্বপ্ন। তবে টুর্নামেন্ট সেরা হয়েছিলেন বাংলাদেশের মেহেদী হাসান মিরাজ। তবে শুধু তাই নয়, এ আসরে বাংলাদেশের রেকর্ড খুবই সমৃদ্ধ। যুবাদের এ আসরে এক আসরে সর্বোচ্চ উইকেট শিকারি বাংলাদেশের এনামুল হক জুনিয়র। এ রেকর্ডটিও অবশ্য তিনি গড়েছিলেন ঘরের মাঠেই। ২০০৪ সালে একাই ২২টি উইকেট নিয়েছিলেন এনামুল। উইকেটের পাশাপাশি সর্বোচ্চ রান সংগ্রাহকও বাংলাদেশি যুবারা। ২০১২ যুব বিশ্বকাপে এনামুল হক বিজয় সর্বোচ্চ ৩৬৫ রান করেছিলেন। তবে পরের আসরে ৪০৬ রান করে বিজয়কে ছাড়িয়ে যান সাদমান ইসলাম।

আরটি/এসএম

 
.



আলোচিত সংবাদ