বিপিএল শেনওয়ারিকে আরো ভালভাবে শেখাচ্ছে ক্রিকেট

ঢাকা, মঙ্গলবার, ২৩ জানুয়ারি ২০১৮ | ১০ মাঘ ১৪২৪

বিপিএল ২০১৭

বিপিএল শেনওয়ারিকে আরো ভালভাবে শেখাচ্ছে ক্রিকেট

রামিন তালুকদার ৬:০৮ অপরাহ্ণ, ডিসেম্বর ০২, ২০১৭

print
বিপিএল শেনওয়ারিকে আরো ভালভাবে শেখাচ্ছে ক্রিকেট

২০১৪ এশিয়া কাপ। দেশের মাটিতেই আফগানিস্তানের কাছে হেরে গেলো বাংলাদেশ, এশিয়া কাপে! টাইগারদের সেই হারের লজ্জা দেওয়ার পেছনে অন্যতম বড় ভূমিকা ছিল অল রাউন্ডার সামিউল্লাহ শেনওয়ারির। শুধু তাই নয়, এই যে আন্তর্জাতিক ক্রিকেটে আফগানদের এতো দ্রুত উঠে আসা তার পেছনেও এই মানুষটির হাত অনেক লম্বা। লেগ স্পিনে উইকেট নেন। ব্যাট করেন প্রয়োজনের সময় বিস্ফোরণ ঘটিয়ে। এই শতাব্দির ক্রিকেটার তিনি। এবারের বিপিএলে রংপুর রাইডার্সের যোদ্ধা। ৮ বছরের বেশি আন্তর্জাতিক ক্রিকেটে নিয়মিত এই আফগানের সাক্ষাৎকার নিয়েছেন পরিবর্তন ডট কমের রামিন তালুকদার। যেখানে উঠে এসেছে তার নিজের, বাংলাদেশ, আফগানিস্তান ও বিশ্ব ক্রিকেটের নানা কথা।

পরিবর্তন : বিপিএলে এবার আপনি রংপুর রাইডার্সেউ কেমন লাগছে? কতোটুকু উপভোগ করতে পারছেন?

শেনওয়ারি : এটা আমার দ্বিতীয় বিপিএল। খুবই ভালো লাগছে এখানে এসে। বলতে পারেন, আমি খুবই রোমাঞ্চিত! আমার এবারের দল রংপুর রাইডার্স খুব শক্তিশালী। অনেক বড় বড় খেলোয়াড় আছে। মালিকপক্ষও খুব আন্তরিক। সব মিলিয়ে বিপিএলটা দারুণ উপভোগ করছি।

পরিবর্তন : আন্তর্জাতিক ক্রিকেট অঙ্গনে অনেক আগেই নিজেকে প্রতিষ্ঠিত করেছেন। তারপরও কি ম্যাককালাম-গেইলদের মতো খেলোয়াড়দের সঙ্গে খেলা হয়েছে? আর এতো বড় বড় খেলোয়াড়ের সঙ্গে খেলার কি ভিন্ন কোন অনুভূতি আছে?

শেনওয়ারি : না, এবারই প্রথম ম্যাককালাম-গেইলদের মতো এতো বড় বড় খেলোয়াড়দের সঙ্গে খেলার সুযোগ হয়েছে। এ ছাড়া বাংলাদেশেরও বেশ কয়েকজন আন্তর্জাতিক ক্রিকেটার আছেন। সত্যি এটা আমার জন্য দারুণ অভিজ্ঞতা। তাদের সঙ্গে থেকে অনেক কিছুই শিখতে পারছি। কিভাবে আমার ব্যাটিং-বোলিং এমনকি ফিল্ডিংয়েও আরো উন্নতি করা যায়, তাদের দেখে শিখছি। রংপুর আমাকে ক্রিকেট ভালো করে বোঝার একটা বড় উপলক্ষ্য।

পরিবর্তন : আপনি বিপিএলে খেলছেন এটা আপনার দেশ আফগানিস্তানের মানুষ কতটা খেয়াল করে? মানে আপনার খেলা কি তারা দেখছে?

শেনওয়ারি : বিপিএলে খেলছি বলে আমাদের দেশের জনগণ এর খেয়াল রাখছে। কবে কখন আমার ম্যাচ এ নিয়ে তাদের খুব আগ্রহ! সবাই খুব সমর্থন করে যাচ্ছে। পরিবার-বন্ধু বান্ধবও সবাই আমার কথা ভাবছে। আসলে আমি খেলি না কেন, কোনো সিরিজে কিংবা যেখানেই হোক, সবাই খুব সমর্থন করে। সাহস জোগায়। আমার সেরাটা দিয়ে চেষ্টা করি এটা সবাই বলে। আসলে রংপুরের হয়ে খেলা বা আফগানিস্তানের হয়ে খেলা, আমার কাছে একই কথা। সব জায়গায়ই আমি আমার শতভাগ দিয়ে খেলি। 

পরিবর্তন : সম্প্রতি আপনারা টেস্ট মর্যাদা পেয়েছেন। শিগগিরই হয়তো টেস্ট খেলবেন। আপনার মাথায়ও উঠবে টেস্ট ক্যাপ। নিজেকে একজন টেস্ট খেলোয়াড় ভাবতে কেমন লাগে?

শেনওয়ারি : অবশ্যই টেস্ট স্ট্যাটাস আমাদের জন্য একটা বিশাল প্রাপ্তি। এটা অনেক বড় একটা ব্যাপার। হয়তো আমিও টেস্ট খেলবো। আর সেটা আগামী বছরই হতে পারে। ইনশা আল্লাহ যে দলটা খেলবে, আমি সেই দলে থাকতে পারবো। টেস্ট খেলার ব্যাপারটা আমাদের জন্য সত্যিই বড় কিছু। এটা নিয়ে আমরা গর্বিত।

পরিবর্তন : বর্তমানে আফগানিস্তান দারুণ খেলছে। বেশ কিছু তরুণ খেলোয়াড় উঠে এসেছে। বিশেষ করে রশিদ খান এখন বিশ্বের অন্যতম ভয়ংকর একজন বোলার। এছাড়াও ১৬ বছরের মুজিব জাদরান নামে একজন তরুণও যুব এশিয়া কাপে বেশ সাড়া ফেলেছে। এসবকে আপনি কিভাবে দেখছেন?

শেনওয়ারি : রশিদ খান খুব ভালোই বোলার। সারা বিশ্ব এখন জানে যে, সে সেরা একজন বোলার। আর মুজিব অনূর্ধ্ব-১৯ দলের এশিয়া কাপে দুর্দান্ত খেলেছে। পাঁচ ম্যাচে ২১টি উইকেট নিয়েছে। এতেই বোঝা যায় সে কতটা উঠে আসছে। সে আমাদের খুব ভালো ব্যাকআপ খেলোয়াড় হিসেবে প্রস্তুত হয়ে উঠছে। এটা সত্যিই দারুণ। আমাদের ভবিষ্যতের জন্য চিন্তিত হতে হবে না। কারণ এ ধরনের তরুণরা উঠে আসছে।

পরিবর্তন : মুজিবের উপর আপনি কতটা আশাবাদী? সে কি জাতীয় দলে খেলার মতো পরিণত হয়েছে?

শেনওয়ারি : আমার মনে হয় মুজিব জাতীয় দলে খেলার মতো তৈরি আছে। অবশ্যই সে ডাক পাবে। আশা করি শিগগিরই আপনারা তাকে আফগানিস্তান জাতীয় দলে দেখতে পারবেন।

পরিবর্তন : বাংলাদেশ ক্রিকেটের উত্থানে দারুণ অবদান আছে অধিনায়ক মাশরাফি বিন মুর্তজার। এবারের বিপিএলে তিনি আপনার অধিনায়ক। তো অধিনায়ক মাশরাফিকে কেমন দেখছেন? আর ব্যক্তি মাশরাফিই বা কেমন?

শেনওয়ারি : মাশরাফি মানুষ হিসেবে অমায়িক, গ্রেট, রসিক এবং বন্ধুত্বপূর্ণ। আসলে মাশরাফি আমার কাছে ভাইয়ের মতো। আমার কাছে তাকে সতীর্থ মনে হয় না, মনে হয় সে আমার বন্ধু ও ভাই। সব সময় খুব অনুপ্রেরণা দেন। দলের প্রতিটি খেলোয়াড় তাকে নিয়ে উচ্ছ্বসিত। আশা করি তার সঙ্গে ভবিষ্যতে আরো খেলতে পারবো।

পরিবর্তন : টেস্ট খেলবেন আপনারা। কিন্তু আপনার দেশে কি ক্রিকেটের অবকাঠামো তৈরি হয়েছে? ওই দেশের ক্রিকেটেরে ভেতরের দিকগুলো কেমন হচ্ছে?

শেনওয়ারি : এইতো, ১০ বছর আগেও আফগানিস্তানে ক্রিকেটের কিছুই ছিলো না। না ছিলো ক্রিকেটার, না ছিলো মাঠ এবং না ছিলো কোনো ধরনের পৃষ্ঠপোষকতা। আর এখন তিনটা আন্তর্জাতিক স্টেডিয়াম তৈরি হয়েছে। বেশ কিছু একাডেমিও আছে। যার মধ্যে কয়েকটা আবার বেসরকারি। ক্রিকেট বোর্ড পরিচালিক সরকারি একাডেমিও আছে। সব মিলিয়ে আফগানিস্তানের ক্রিকেট এখন দারুণ এগিয়ে যাচ্ছে। আমরা সবাই খুবই আশাবাদী।

পরিবর্তন : উপমহাদেশে ক্রিকেট খুবই জনপ্রিয়। বলতে গেলে সত্যিকার ক্রিকেটটা বেঁচে আছে এই উপমহাদেশেই। বাংলাদেশ, ভারত ও পাকিস্তানে এর তুমুল জনপ্রিয়তা। আফগানিস্তানে ক্রিকেটটাকে কিভাবে দেখে তাদের জনগণ?

শেনওয়ারি : আফগানিস্তানেও ক্রিকেট এক নম্বর খেলা। দেশের সাধারণ মানুষও ক্রিকেট খুব পছন্দ করে। এটা নিয়ে খুব আশাবাদীও তারা। ক্রিকেটের কারণে তাদের মুখে হাসি ফোটে। তারা চায় ক্রিকেট দল তাদের যেন আরো বেশি আনন্দ দিতে পারে। আসলে আন্তর্জাতিক ম্যাচে যখন দেশের পতাকাটা উড়ে, সেটা দেখার চেয়ে আনন্দের কিছু হতে পারে না। আফগানিস্তানের মানুষ ক্রিকেটকে খুবই ভালোবেসে ফেলেছে।

পরিবর্তন : এবার আপনার নিজের কথা বলুন? ক্রিকেটার হওয়ার পেছনে কার অবদান বেশি? কাউকে অনুসরণ করেন কি?

শেনওয়ারি : শেন ওয়ার্নের খেলা খুব ভালো লাগতো। সত্যি বলতে তার খেলাই আমাকে অনেক অনুপ্রাণিত করেছে। তিনি ক্রিকেট ইতিহাসের অন্যতম সেরা বোলার। তার খেলা অনেক দেখেছি। একজন বোলার হিসেবে আমি তাকে সবসময়ই অনুসরণ করার চেষ্টা করি। আর ব্যাটিংয়ে আমার অনুপ্রেরণা কেভিন পিটারসেন। তার ব্যাটিংয়ের ধরন আমার খুব পছন্দ।

পরিবর্তন : শেন ওয়ার্নের সঙ্গে দেখা হয়েছে কি?

শেনওয়ারি : (হাসি) না, তাকে কখনো দেখিনি, তবে আশা করি ভবিষ্যতে দেখবো। ইনশা আল্লাহ।

আরটি/ক্যাট

print
 
.

আলোচিত সংবাদ

nilsagor ad