‘পিএসএলের চেয়ে বিপিএলে প্রতিদ্বন্দ্বিতা বেশি’

ঢাকা, মঙ্গলবার, ২৩ জানুয়ারি ২০১৮ | ১০ মাঘ ১৪২৪

বিপিএল ২০১৭

‘পিএসএলের চেয়ে বিপিএলে প্রতিদ্বন্দ্বিতা বেশি’

রামিন তালুকদার ৭:৫৩ অপরাহ্ণ, ডিসেম্বর ০১, ২০১৭

print
‘পিএসএলের চেয়ে বিপিএলে প্রতিদ্বন্দ্বিতা বেশি’

যুব বিশ্বকাপে টানা দুই আসরের সেরা ব্যাটসম্যান। তখনই বোঝা গিয়েছিল দারুণ একজন ব্যাটসম্যান পেতে যাচ্ছে পাকিস্তান। তাই তার নাম ডাক ছড়িয়ে যেতে সময় লাগেনি। গত বাংলাদেশ প্রিমিয়ার লিগে (বিপিএল) তাকে দলে নিয়েছিলেন রংপুর রাইডার্স। আসলে শুধু দলেই ছিলেন। খেলার সুযোগই হয়নি। বড় বড় তারকার ভিড়ে ছিলেন খুব তরুণ একজন খেলোয়াড়। কিন্তু এক আসর পরই বদলে গেছে তার পৃথিবী। আন্তর্জাতিক ক্রিকেটে নিজেকে প্রমাণ করে এখন বিশ্ব তারকাই বনে গেছেন বাবর আজম। পাকিস্তানের হয়ে খেলেছেন ৩৬টি ওয়ানডে ম্যাচ। এর মধ্যেই ৭টি সেঞ্চুরি করেছেন। ৭টি হাফসেঞ্চুরিও। তাকেই ভাবা হচ্ছে পরবর্তী ইনজামাম-উল-হক। অনেকে তার মাঝে ছায়া দেখছেন ভারতের বিস্ময়কর ব্যাটসম্যান বিরাট কোহলির। কিন্তু বাবর কি ভাবছেন? তার ক্রিকেটার হয়ে ওঠার গল্প, অনুপ্রেরণা হতে শুরু করে বাংলাদেশ প্রিমিয়ার লিগের (বিপিএল) মান ও এখানে খেলার অনুভূতিও উঠে এসেছে পরিবর্তন ডট কমের ক্রীড়া প্রতিবেদক রামিন তালুকদারের সঙ্গে একান্ত সাক্ষাৎকারে। পরিবর্তনের পাঠকদের জন্য তার বিশেষ অংশ তুলে ধরা হলো।

পরিবর্তন : বিপিএলের এবারের আসর কেমন লাগছে? বাংলাদেশকেও কেমন দেখছেন?

বাবর : হ্যাঁ, বিপিএলে এসে খুবই ভালো লাগছে। এর আগেও এখানে খেলতে এসেছি। এবার খেলছি সিলেট সিক্সার্সের হয়ে। দলের সবাই খুব বন্ধুত্বপূর্ণ। একটা পরিবারের মতো। বিশেষ করে বাংলাদেশের ক্রিকেটারদের সঙ্গে ড্রেসিংরুম ভাগাভাগি করতে সত্যিই দারুণ মজার ব্যাপার। সব মিলিয়ে বিপিএল খুবই ভালো যাচ্ছে এবং বাংলাদেশেও খুব ভালো আছি।

পরিবর্তন : আপনার দলে বাংলাদেশের বেশ কিছু বড় তারকা আছেন। নাসির হোসেন ও সাব্বির রহমানের মতো খেলোয়াড়দের সঙ্গে খেলার অনুভূতি কেমন?

বাবর : আমাদের দলে বেশ কয়েকজন বাংলাদেশ জাতীয় দলে খেলেন। নাসির হোসেন ও সাব্বির রহমান আছেন। তাদের সঙ্গে একসঙ্গে ড্রেসিং রুমে থাকতে পারাটা দারুণ। তারা দুজনই খুব ভালো পারফর্মার। বিশেষ করে সাব্বির দারুণ পারফর্ম করছে।

পরিবর্তন : অধিনায়ক হিসেবে নাসির হোসেনকে কেমন দেখছেন?

বাবর : নাসির ভাই অধিনায়ক হিসেবে খুবই শান্ত এবং দৃঢ়। এবং খেলোয়াড়সূলভ মানসিকতার। তার অধীনে খেলতে পারাটা দারুণ ব্যাপার। সবমিলিয়ে খুব উপভোগ করছি।

পরিবর্তন : আপনার দেশের ফ্র্যাঞ্চাইজি ভিত্তিক টি-টুয়েন্টি লিগ পিএসএলে খেলেছেন। এখন খেলছেন বিপিএলে। এ দুই লিগের মধ্যে কি পার্থক্য দেখছেন?

বাবর : পিএসএলের সঙ্গে বিপিএলে খুব বেশি পার্থক্য দেখি না। অনেকটাই একই রকম সব কিছু। তবে এবার বিপিএলে অনেক বেশি আন্তর্জাতিক ক্রিকেটার এসেছে। অনেক বড় ক্রিকেটার আছে। এ জন্য প্রতিদ্বন্দ্বিতাও খুব ভালো হচ্ছে। ফলে কঠিন ক্রিকেট হচ্ছে। আর আমি কঠিন ক্রিকেট খেলতেই বেশি পছন্দ করি।

পরিবর্তন : ক্রিকেটার হওয়ার পেছনের গল্পটা যদি বলতেন? কিভাবে কি করে ক্রিকেটার হলেন?

বাবর : ছোটবেলা থেকেই ক্রিকেটের প্রতি খুব বেশি ঝোঁক ছিলো। গলিতে ক্রিকেট খেলেছি প্রচুর। এরপর লাহোরের একটা ছোট ক্লাবে খেলা শুরু করি। সেখান থেকে অনূর্ধ্ব-১৬ দল। তারপর অনূর্ধ্ব-১৯ দলে খেলেছি। ২০১০ ও ২০১২ সালের অনূর্ধ্ব-১৯ বিশ্বকাপে আমি পাকিস্তানের সেরা ব্যাটসম্যানও ছিলাম। তখন সাব্বিরও বাংলাদেশ অনূর্ধ্ব-১৯ দলে খেলে। এভাবেই কঠোর পরিশ্রম করে উঠে এসেছি।

পরিবর্তন : ক্রিকেটার হতে আপনাকে কে বেশি অনুপ্রেরণা দিয়েছে? কাকে দেখে ক্রিকেটার হয়েছেন বা কাউকে অনুসরণ করতেন?

বাবর : ক্রিকেটার হওয়ার ইচ্ছে ছিলো শুরু থেকেই। এ জন্য আমার পরিবারও অনেক সমর্থন দিয়েছে। আর আমি এবি ডি ভিলিয়ার্সকে ফলো করতাম। তার খেলা সবসময় উপভোগ করি। তাকে দেখে খুব অনুপ্রাণিত হয়েছি। তার ব্যাটিং দেখে অনেক কিছুই শিখি।

পরিবর্তন : আপনাকে ভারতের বিস্ময় ক্রিকেটার বিরাট কোহলির সঙ্গে তুলনা করা হয়। এ ব্যাপারটাকে আপনি কিভাবে দেখেন? এটা আপনার উপর চাপ হয়ে যায় কি?

বাবর : এটা অনেক বেশি হয়ে যায়। এ রকম কিছু নয় আসলে। সে তো বিশ্বসেরা ক্রিকেটার। আর আমার সবে মাত্র শুরু। এ জন্য তার সঙ্গে আমার তুলনা পছন্দ করি না। তবে তার পারফর্ম্যান্স আমাকে অনুপ্রাণিত করে। সে দারুণ একজন ক্রিকেটার। তাকে আমি অনুসরণও করি। তবে তার সঙ্গে তুলনা মোটেও পছন্দ করি না। সে বিশ্বসেরা। আমি তা নই।

পরিবর্তন : মিসবাহ উল হক ও ইউনিস খানের বিদায়ের পর আপনাকেই ভাবা হয় পাকিস্তানের পরবর্তী বড় তারকা। ভবিষ্যতে তাদের ছাড়িয়ে যাবেন বলেও মনে করেন অনেকে। তো টেস্ট ক্রিকেটে তাদের স্থানটা দখল করে নেওয়ার জন্য কিছু করছেন?

বাবর : আসলে আমি ওয়ানডে এবং টি-টুয়েন্টিতে যেভাবে খেলছি, তা খুবই ভালো হচ্ছে। কিন্তু টেস্টে তা হচ্ছে না। তবে আমি চেষ্টা করছি এমন কিছু টেস্টেও করার। তারপরও মিসবাহ ভাই ও ইউনিস ভাইয়ের জায়গা কেউ নিতে পারবে বলে মনে হয় না। কারণ তারা অনেক বড় ক্রিকেটার ছিলেন। এবং পাকিস্তানকে অনেক কিছু দিয়েছেন। আমিও চেষ্টা করবো বড় কিছু করার। ওয়ানডে ও টি-টুয়েন্টিতে যেমন খেলছি, তা টেস্টেও করবো ইনশা আল্লাহ।

পরিবর্তন : যদিও অনেক আগেই হয়ে যায় তারপরও প্রশ্ন, ক্যারিয়ার শেষে নিজেকে কোথায় দেখতে চান?

বাবর : (হাসি) এভাবে তো ভাবি না! পাকিস্তানের জন্য যতো বড় কিছু করা সম্ভব তা করতে চেষ্টা করবো। পুরো ক্যারিয়ার দিয়ে তাই-ই করতে চাই। কবে অবসর নিবো, জানি না। তবে অনেক বড় কিছু করার ইচ্ছা আছে দেশের জন্য। আপাতত আগামী বিশ্বকাপের জন্য প্রস্তুতি নিচ্ছি।

পরিবর্তন : খুব শিগগিরি হয়তো দেশের মাটিতে আন্তর্জাতিক ক্রিকেট ফিরছে? এর মধ্যে এর প্রক্রিয়াও শুরু হয়েছে। কেমন লাগছে? ঘরের মাঠে খেলার অনুভূতি কেমন?

বাবর : দেশের মাটিতে খেলার মজাটাই আলাদা। কারণ নিজেদের দর্শক থাকে সেখানে। ঘরের মাঠে নিজেদের দর্শকদের সামনে খেলতে পারার কোনো তুলনাই হয় না।

আরটি/টিএআর

print
 
.

আলোচিত সংবাদ

nilsagor ad