উসমানের ম্যাচে শ্রীলঙ্কাকে হোয়াইটওয়াশই করল পাকিস্তান

ঢাকা, বৃহস্পতিবার, ২৩ নভেম্বর ২০১৭ | ৯ অগ্রহায়ণ ১৪২৪

উসমানের ম্যাচে শ্রীলঙ্কাকে হোয়াইটওয়াশই করল পাকিস্তান

পরিবর্তন ডেস্ক ৮:০৪ অপরাহ্ণ, অক্টোবর ২৩, ২০১৭

print
উসমানের ম্যাচে শ্রীলঙ্কাকে হোয়াইটওয়াশই করল পাকিস্তান

শারজা এমনিতে পাকিস্তানিদের খুব প্রিয়। তার ওপর সেখানে খেলা। অনেকটা গুরুত্বহীন। ৪-০ তে সিরিজে এগিয়ে থাকা পাকিস্তান শেষ ম্যাচটা জিতলেই হোয়াইটওয়াশ করে প্রতিপক্ষকে! এই খেলা কে দেখতে চায়? কিন্তু এমন খেলা যে দেখেননি যারা তারা মিস করেছেন অনেক কিছু। বিশেষ করে মিসের তালিকায় যে পাকিস্তানিদের নাম, তাদের তো আক্ষেপের সীমাই নেই। যেমন ওয়াসিম আকরাম। বাঁহাতি পেস কিংবদন্দি এদিন ২১ বলে নতুন আবিস্কার উসমান খানের ৫ উইকেট নেওয়া আগুনে স্পেল দেখতে না পারার আক্ষেপে পুড়ছেন। উসমানের জন্য অবশ্য কাজটা খুব সহজই হয়ে গিয়েছিল পাকিস্তানের। শেষ ওয়ানডেটা সোমবার সহজেই ৯ উইকেটে জিতে শ্রীলঙ্কাকে ৫-০ তে হোয়াইটওয়াশ হওয়ার লজ্জা দিয়েছে তারা।

.

শ্রীলঙ্কা ডুবলো একই বছরে টানা তিন সিরিজে হোয়াইটওয়াশ হওয়ার লজ্জায়। কিন্তু শেষ ওয়ানডেতে তো নিজেদের সর্বনিম্ন রানেও অল আউট হওয়ার রেকর্ড গড়তে পারতো! ২১ বলের মধ্যে ৫ উইকেট ২৩ বছরের উসমানের, নতুন বল হাতে। ২০ রানে নেই ৫ উইকেট। টস জিতে ব্যাট করতে যাওয়াটা ভুল হয়ে গেঠে ভাবতে ভাবতে লঙ্কানরা কিছুটা লড়ে। তাতেও খুব বাঁচে না কিছু। ২৬.২ ওভারে ১০৩ রানে অল আউট। ২০.২ ওভারেই ১ উইকেটে ১০৫ রান তুলে উৎসবে মাতে সরফরাজ আহমেদের দল।

বোচ মিকি আর্থার তার চ্যাম্পিয়ন্স ট্রফি জয়ী দলটার কাছ থেকে এটাই চেয়েছিলেন। প্রতিপক্ষকে হোয়াইটওয়াশ। তিনিও নিশ্চয়ই চমকে গেছেন প্রথম ওভারে দুটি, দ্বিতীয় ওভারে দুটি এবং চতুর্থ ওভারে একটি উইকেট নিয়ে উসমানকে এমন পরিস্থিতি তৈরি করতে দেখে! কি তাণ্ডব এই পেসারের! লঙ্কান ব্যাটসম্যানরা অসহায়। তার হাতে আউট হওয়া তিন ব্যাটসম্যান কোনো রানই করতে পারেননি। শেষ পর্যন্ত সংক্ষিপ্ত এই ম্যাচে ৭ ওভারে ৩৪ রানে ৫ উইকেট উসমানের। ২টি করে উইকেট হাসান আলি ও শাদাব খানের। ভুলে গেলে চলছে না, উসমান কিন্তু মোহাম্মদ আমিরের ইনজুরিতে দলে ঢুকেছিলেন। খেলেছেন আগেরটি আর এই ম্যাচটি মাত্র। আর ক্যারিয়ারের দ্বিতীয় ওয়ানডেতেই বিশ্ব কাঁপালেন। ইতিহাসে সবচেয়ে কম বল খরচায় ৫ উইকেট শিকারের রেকর্ডের তালিকার তৃতীয় স্থানে এখন উসমানের নাম।

প্রধান নির্বাচক ইনজামাম উল হকের ভাতিজা ইমাম উল হক অভিষেকেই সেঞ্চুরি করে অনেক জবাব দিয়েছেন। আগের মষ্যাচটি ছিল তার দ্বিতীয়। রান পাননি। এবার বাউন্ডারি মেরে খেলাটা শেষ করেছেন এই ওপেনারই। ৬৪ বলে ৪ চার ও ১ ছক্কায় ৪৫ রানে অপরাজিত। ফখর জামান ও তিনি মিলে ৮৪ রানের উদ্বোধনী জুটি গড়ে দিয়ে গেছেন। ফখর করেছেন ৪৮ রান। ফাহিম আশরাফ এসে ৫ রানে অপরাজিত থেকে ইমামের সাথে উৎসব করতে করতে মাঠ ছেড়েছেন।

এই সিরিজে শ্রীলঙ্কাকে হোয়াইটওয়াশ করার সাথে আরো দুটি বড় ব্যাপার কিন্তু ঘটলো পাকিস্তানের ক্রিকেটে। ওপেনিং ব্যাটসম্যান ইমাম উল হক এবং নতুন বলের পেসার উসমান খানকে পাওয়া। এক সিরিজে দুই সেনসেশনাল খেলোয়াড়! পাকিস্তানের আর কি চাই!

ক্যাট

print
 

আলোচিত সংবাদ

nilsagor ad