মুশফিককে নেতৃত্বেই দেখতে চান ভিন্ন খেলার তারকারা

ঢাকা, বৃহস্পতিবার, ১৪ ডিসেম্বর ২০১৭ | ৩০ অগ্রহায়ণ ১৪২৪

মুশফিককে নেতৃত্বেই দেখতে চান ভিন্ন খেলার তারকারা

তোফায়েল আহমেদ ৪:১৪ অপরাহ্ণ, অক্টোবর ১২, ২০১৭

print
মুশফিককে নেতৃত্বেই দেখতে চান ভিন্ন খেলার তারকারা

দক্ষিণ আফ্রিকায় নিজের টেস্ট অধিনায়কত্বের এপিটাফই কি লেখা হয়ে গেছে মুশফিকুর রহীমের? পুরো সিরিজ জুড়ে ও সিরিজ পরিবর্তী ঘটনা প্রবাহ তো তারই আভাস দেয়। প্রোটিয়াদের বিপক্ষে বাংলাদেশ টেস্ট সিরিজে হোয়াইটওয়াইশ হয়েছে। সামনেই ওয়ানডে সিরিজ। মুশফিক ইস্যু তাতে চাপা পড়েছে কিছুটা। তার উপর বাংলাদেশের পরের টেস্ট সিরিজ শুরু হতেও মাস দুয়েকের বেশি বাকি। কিন্তু মুশফিকের যে আর ক্যাপ্টেন থাকা হচ্ছে না এটা অনেকেই ধরে নিয়েছেন। ক্রিকেট বোর্ড অবশ্য বলেছে, দল ফিরলে মুশফিককে নিয়ে বসবে তারা। তাকে নেতৃত্ব থেকে সরানোর সিদ্ধান্ত হয়নি। কিন্তু মুশফিকের টেস্ট নেতৃত্ব কেড়ে নেওয়া হলে ব্যাপারটা কি ভালো হবে? নাকি মন্দ হবে? এই ভাবনা থেকে পরিবর্তন ডট কমের স্পোর্টস রিপোর্টার তোফায়েল আহমেদ কথা বলেছেন ক্রিকেটের বাইরে অন্য খেলায় দেশের শীর্ষ তারকাদের সঙ্গে। জানা যাক তাদের মতামত।

.

মামুনুল ইসলাম
ফুটবলার

আমার মনে হয়না মুশফিককে এখন অধিনায়কত্ব থেকে সরিয়ে দেওয়াটা ঠিক হবে। কারণ ওর অধীনে আমরা মাত্রই অস্ট্রেলিয়াকে হারালাম। এর আগে ইংল্যান্ডকে হারালাম। একটা সিরিজেই সবকিছু বদলে যেতে পারে না। কারণ ও নিজে পারফরম করে, একই সঙ্গে অন্যদের দিয়ে পারফরম করায়। দক্ষিণ আফ্রিকায় অ্যাওয়ে সিরিজ খেলতে গেছে বাংলাদেশ। ভিন্ন কন্ডিশনে খেলোয়াড়রা হয়তো দুই বিভাগেই ভালো ভাবে ক্লিক করতে পারে নি। কেউ ক্লিক করতে পারলে আর ইনিংস পরাজয় হতো না। প্রথম টেস্ট দেখুন, সেটা ৫ দিনে দিনে গেছে। ওই কন্ডিশনে ৫ দিনে যাওয়াও আমার মতে বড় ব্যপার। এভাবেই একদিন ম্যাচ জিতবে। আমি মনে করি অধিনায়ক হিসেবে মুশফিকের উপর এখনো বিশ্বাস রাখা উচিত। মুশফিক সংবাদ মাধ্যমে প্রকাশ্যে অনেক কিছু বলছে। ওর মধ্যে হয়তো কোন ক্ষোভ আছে। এটার ভুল-সঠিক দুটি দিকই আছে। আমি বলবো মুশফিকের জায়গায় মুশিফিক ঠিক। একটা খেলায় তো সবাই খেলে, মুশফিক একা না। কোন দায় তাই শুধু মুশফিকের উপর আসা ঠিক না। সাকিব পুরো সিরিজে, তামিম দ্বিতীয় টেস্টে ছিল না। এই দুজন ছাড়া বাংলাদেশ টিম কি হতে পারে আমরা সবাই জানি। মুশফিককে নিয়ে যে কথাগুলো উঠে আসছে তাতে মনে হয় মুশফিকের উপর কোন ক্ষোভ মেটানো হচ্ছে। ক্রিকেট দলের জন্য এটা ভালো হবে না। আজকে মুশফিকের জন্য হলে আরেক দিন আরেক অন্য জনের সঙ্গে হবে।

মাহফুজা খাতুন শীলা
সাঁতারু

মুশফিক তো অধিনায়ক হিসেবে দীর্ঘ দিন ধরেই আছেন। দক্ষিণ আফ্রিকায় যা হয়েছে তাতে আমি বলবো উনি একা তো আর কোন সিদ্ধান্ত নেন না। তাই উনাকে সরিয়ে দেওয়ার ব্যাপারে আমি একমত না। এখন ক্রিকেট বোর্ড যদি মনে করে আসলে তাকে দরকার নেই তাহলে হতে পারে। এখন তাদের প্রয়োজনের উপর সবকিছু নির্ভর করছে। সিনিয়র খেলোয়াড় হিসেবে তাকে রাখা উচিত। তারপরও যদি কোন ঘাটতি নির্দিষ্ট করে খুঁজে পেয়ে তাকে সরিয়ে দেয় বোর্ড তাহলে আমাদের কিছু বলার নাই। তবে আমি চাই তিনি থাকুক। একজন অ্যাথলেট হিসেবে আরেক অ্যাথলেটের জন্য এটা আমার চাওয়া। তামিম ভাইয়ের একটা মন্তব্য দেখলাম পত্রিকায়। যদিও আমি ভেতরের খবরটা জানি না আসলে কি। তবে পত্র-পত্রিকা পড়ে মনে হচ্ছে আমার তার পাশে থাকা উচিত।

মাবিয়া আক্তার সীমান্ত
ভারোত্তোলক

মানুষের সময় তো আর সব সময় এক যায় না। কখনো ভালো যায়, কখনো খারাপ। আমার মনে হয় যেহেতু দক্ষিণ আফ্রিকায় দুইটা টেস্টে এরকম হয়েছে তাই সরিয়ে না দিয়ে তার ভুলগুলো সংশোধন করিয়ে দেওয়া উচিত। একজন মানুষকে সরিয়ে আরেক জনকে বসালেই যে ভুলগুলো ঠিক হয়ে যাবে তা তো নয়। তারও এরকম ভুল হতে পারে। তার চেয়ে ভালো যে আছে তার ভুলগুলো ধরিয়ে দেওয়া হোক। আর সত্যিই যদি সব বিবেচনায় তার চেয়ে ভালো কেউ থাকে তাহলে মনে হয় সরিয়ে দেওয়া যায়। অন্যথায় কোন ভাবেই এটা ঠিক হবে না। তবে আগে শুধরানোর চেষ্টাটা করা উচিত। আর বাংলাদেশ দলে মুশফিক ভাই তার জায়গায় সেরা।


মেজবাহ আহমেদ
স্প্রিন্টার

মুশফিক ভাই অত্যন্ত ট্যালেন্টেড এবং শান্ত-শিষ্ট একজন ছেলে। আমি মনে করি না তাকে অধিনায়কত্ব থেকে বাদ দিলে টিমের রেজাল্ট ভালো হবে। বরং আরো খারাপই হতে পারে। টেস্টে অধিনায়কের দায়িত্ব পালন করা ওয়ানডে ও ও টি-টুয়েন্টি থেকে কঠিন। টেস্ট অনেক দীর্ঘ সময়ের খেলা, দীর্ঘ মেয়াদী চিন্তা-ভাবনার খেলা। যেটা মুশফিক ভাইয়ের বেশি আছে বলে আমার মনে হয়। উনি অনেক সিনিয়র খেলোয়াড় আর অনেক ভালো লোক। আমার কাছে তাই মনে হয় না বিষয়টা ভালো হবে। তারপরও বোর্ড যদি সরিয়ে দিতে চায় দিতেই পারে। নির্বাচক-ম্যানেজমেন্ট যদি ভালো মনে করে সেটা তাদের ব্যপার। তবে আমি ব্যক্তিগত ভাবে মুশফিক ভাইকে সাপোর্ট করি বা পছন্দ করি। আর খেলাধুলায় রাজনীতি না আনাই ভালো। যারা যোগ্য তাদেরকেই রাখা উচিত।

টিএআর/ক্যাট

print
 

আলোচিত সংবাদ

nilsagor ad