কোচ-নির্বাচকদের সঠিক প্রমাণ করতে চান ইমরুল

ঢাকা, মঙ্গলবার, ১৭ অক্টোবর ২০১৭ | ২ কার্তিক ১৪২৪

কোচ-নির্বাচকদের সঠিক প্রমাণ করতে চান ইমরুল

পরিবর্তন প্রতিবেদক ৫:০৩ অপরাহ্ণ, সেপ্টেম্বর ১৩, ২০১৭

print
কোচ-নির্বাচকদের সঠিক প্রমাণ করতে চান ইমরুল

শেষ চার ইনিংসে রান মাত্র ২১। এটা অস্ট্রেলিয়ার বিপক্ষে ঘরের মাঠে ইমরুল কায়েসের পারফরম্যান্স। এরপর থেকেই শুরু হয় তার মুণ্ডপাত। সামাজিক মাধ্যমে তাকে নিয়ে সরব ক্রিকেট ভক্তরা। অনেকেই ভেবেছিলেন দক্ষিণ আফ্রিকা সিরিজে হয়তো দলেই থাকছেন না। কিন্তু সে আশঙ্কা দূর করে প্রোটিয়াদের বিপক্ষে তার উপরই আস্থা রাখেন কোচ-নির্বাচকরা। আর তার উপর এ আস্থার কারণেই উজ্জীবিত ইমরুল। এবার ব্যাট হাতে ভালো কিছু করেই কোচ-নির্বাচকদের আস্থার প্রতিদান দিতে চান এ বাঁহাতি ক্রিকেটার।

নিউজিল্যান্ড সিরিজ থেকেই ওপেনিংয়ে জায়গা দখল করেছেন সৌম্য সরকার। ফলে এখন তিন নম্বরেই খেলতে হচ্ছে ইমরুলকে। এই পজিশনে মুমিনুল হক গত কয়েক বছর ধরেই ধারাবাহিক পারফরম্যান্স করে আসছেন। তার উপর অস্ট্রেলিয়ার বিপক্ষে সিরিজে পুরোপুরি ব্যর্থ ইমরুল। ফলে তার দক্ষিণ আফ্রিকা সফর শঙ্কায়ই ছিল। কিন্তু বাউন্সি উইকেটে ভালো খেলার কারণেই তার উপর আস্থা রাখেন নির্বাচকরা। আর সে আস্থার প্রতিদানটা ব্যাট হাতেই দিতে চান তিনি, ‘তাঁদের ধন্যবাদ। আমার উপর তারা যে আস্থা রেখেছে। ভালো করিনি তবুও তাঁরা আমাকে সুযোগ দিয়েছে। এটার জন্য ধন্যবাদ। আস্থার প্রতিদান ভালো ভাবে দিতে চাই।’

শ্রীলঙ্কা-অস্ট্রেলিয়া সিরিজের আগে ব্যাট হাত হাতে ভালোই করছিলেন ইমরুল। তামিমের সঙ্গে তার ওপেনিং জুটিটাও ছিল দারুণ। কিন্তু ইনজুরির পর থেকেই বদলে যায় পরিস্থিতি। তবে তারপরও কোচ নির্ভয় দিয়েছেন ইমরুলকে, ‌‘‘কোচের সঙ্গে কথা হয়েছে। একটা খেলোয়াড় চারটা ইনিংস খারাপ খেলেছে বলে তো আমরা তাকে বাদ দিতে পারি না। আমাকে বলেছে,‘তুমি টানা দুই-তিন বছর টেস্ট ক্রিকেটে রান করে গেছ। সর্বোচ্চ সকল সংস্করণেই রান করেছ। দুই-চারটা ইনিংস খারাপ করলেই তাকে ড্রপ করতে পারি না।’ আমাকে বলেছে তুমি খেলে যাও। অসুবিধা নেই।’’

দক্ষিণ আফ্রিকায় বড় চ্যালেঞ্জেই পড়বেন টাইগাররা। কারণ সেখানকার কন্ডিশনে বাউন্সি ট্র্যাক থাকে। আর এমন উইকেটে ভালো খেলেন ইমরুল। তাই দক্ষিণ আফ্রিকায়ই জ্বলে উঠতে চান তিনি। সে লক্ষ্যে কঠিন অনুশীলনই করছেন এ বাঁহাতি ব্যাটসম্যান, ‘ওখানে বাউন্সি ট্র্যাক সবাই জানে। ব্যাক আপ লেন্থে বল বেশি করবে সবাই। আমাদের ছুটির যে সময়টা ছিল, আমরা ইনডোরে এসে অনুশীলন করলাম। ওখানে গিয়ে তিনদিন অনুশীলন করতে পারব। অনুশীলন ম্যাচও আছে। ওভাবেই মানিয়ে নেওয়ার চেষ্টা করব ম্যাচের আগে।’

প্রোটিয়াদের বিপক্ষে নিজেকে ফিরে পেতে মরিয়া ইমরুল। তবে কিছু স্মৃতিও প্রেরণা দিচ্ছে তাকে। ২০০৮ সালে দক্ষিণ আফ্রিকায় অভিষেক হয়েছিল তার, ‘‘ওই সিরিজে আমার অভিষেক হয়েছিল। আমি তখন অনেক কিছুই বুঝিনি, টেস্ট ক্রিকেট, আন্তর্জাতিক ক্রিকেট তাও আবার দক্ষিণ আফ্রিকার মতো জায়গায়। আমার জন্য কঠিন হয়ে গিয়েছিল। আমি খুব সাহসের সঙ্গে ব্যাটিং করেছিলাম। সিনিয়ার ক্রিকেটাররা যারা ছিলেন তারা সবাই বলেছিলেন,‘ব্যাটসম্যান হিসেবে যে জিনিসটা দরকার সেই জিনিসটা তোমার মধ্যে আছে। অসুবিধা নেই। তুমি সামনে আরও ভালো করতে পারবা। তুমি এই সাহসটা রেখো।”

সেই সাহসটা এবারও দেখাবেন ইমরুল। আর তাতেই হয়তো সমালোচকদের জবাব দেওয়ার রশদ মিলবে তার।

আরটি/ক্যাট

print
 

আলোচিত সংবাদ

nilsagor ad