নিন্দার জবাব ব্যাট দিয়ে দেবেন সৌম্য

ঢাকা, সোমবার, ১১ ডিসেম্বর ২০১৭ | ২৭ অগ্রহায়ণ ১৪২৪

নিন্দার জবাব ব্যাট দিয়ে দেবেন সৌম্য

পরিবর্তন প্রতিবেদক ৪:৩৮ অপরাহ্ণ, সেপ্টেম্বর ১৩, ২০১৭

print
নিন্দার জবাব ব্যাট দিয়ে দেবেন সৌম্য

অভিষেকের পর ধুম ধারাক্কা ব্যাটিংয়ের কারণেই ক্রিকেটপ্রেমীদের হৃদয়ে জায়গা করে নেন সৌম্য সরকার। স্বপ্নের মতোই কাটিয়েছেন ২০১৫ সাল। কিন্তু সে বছরই অনাকাঙ্ক্ষিত ইনজুরিতে পড়েন। এরপর ফিরে এসে ছন্দ খুঁজে পেতে করতে হয় কঠিন সংগ্রাম। এর মধ্যেই অনেক নিন্দুক জুটে যায় তার। নিউজিল্যান্ড সিরিজ থেকে নিজেকে খুঁজে পেলেও ঘরের মাঠে অস্ট্রেলিয়ার বিপক্ষে আবার ছন্দপতন। আবার সমালোচনা। তবে এসব কিছু নিয়ে ভাবেন না সৌম্য। ভালো কি মন্দ, আলোচনায় থাকেন বলে বিষয়টিকে ইতিবাচক দৃষ্টিতেই দেখেন এ ড্যাশিং ব্যাটসম্যান। তবে সমালোচনা বন্ধের উপায়টাও ভালো করে জানা আছে তার। রান করলেই সবার মুখে লাগবে তালা, শেষ হবে সমালোচনা। জানেন সৌম্য।

.

গত বছর থেকেই সৌম্যর সমালোচকরা তাকে একহাত নিচ্ছেন। সদ্য সমাপ্ত অস্ট্রেলিয়া সিরিজে খারাপ খেলার পর যেন আরও উত্তপ্ত হয়ে ওঠেন। তবে এ নিয়ে কোনো মাথাব্যাথাই নেই খোদ সৌম্যর। ব্যাটেই জবাব দিতে চান তিনি, ‘ভালো খেললেও তো সবাই কথা বলে। যেহেতু আমদের দেশের ভালো খেললে তাকে নিয়ে বেশি আলোচনা হয়, খারাপ খেললেও কথা বলে। এটাকে ইতিবাচক ভাবে দেখি। ভালো-মন্দ যাই হোক, সবাই আমাকে নিয়েই কথা বলছে। এসব ভেবে মানসিকভাবে শক্ত থাকার চেষ্টা করি। সমালোচকদের চুপ করানোর একটাই উপায় আছে, সেটা হলো রান করা। আমি কঠিন পরিশ্রম করি বেশি রান করার জন্য।’

তবে অস্ট্রেলিয়ার বিপক্ষে রান না পেলেও শুরুটা ভালোই করেছিলেন সৌম্য। প্রতি ইনিংসে বল দারুণ ভাবেই ব্যাটে পাচ্ছিলেন। আউট হয়েছেন কখনো নিজের ভুলে, বোলারের দুর্দান্ত বোলিংয়ে কিংবা উইকেটের প্যাচে পড়ে। তাই দক্ষিণ আফ্রিকায় যাওয়ার আগে আত্মবিশ্বাস হারাননি সৌম্য। তবে কেন অল্পতে আউট হচ্ছেন তা নিয়ে আলাদা করে কাজ করছেন এই বাঁহাতি, ‘শ্রীলঙ্কাতে যেভাবে খেলেছি, এখানেও সেভাবে খেলতে চেয়েছি। কারণ শ্রীলঙ্কার উইকেট আর আমাদের উইকেট প্রায় একই রকম। এ কারণেই ওই রকমের ব্যাটিংই করেছি। যতোটুকু সময় উইকেটে ছিলাম, ব্যাটেও বল আসছিলো। কিন্তু একটা ভুলের কারণে আউট হয়ে যাচ্ছিলাম।' সমস্যা বের করে সমাধানের পথে হাঁটা সৌম্য বুধবার মিরপুরে বলেছেন, 'এটা নিয়ে কাজ করছি। দেখছি যে, এটা আমার ভুল নাকি ওরা বেশি ভালো বল করেছে। এই ভুলটা যাতে ওখানে গিয়ে না হয়, সেই চেষ্টা করছি।’

সব সমালোচনাকে ইতিবাচক ভাবে নিলেও বিষয়টিতে একটুও কষ্ট পান না সৌম্য, এমনটা নয়। সে সময়ে ফেসবুক কিংবা অন্যান্য সামাজিক মাধ্যম কম ব্যবহার করেন বলে জানান তিনি, ‘সবচেয়ে বড় কথা হলো ওই সময়টায় ফেসবুকে কম যাওয়ার চেষ্টা করি।’ দক্ষিণ আফ্রিকার উইকেট বরাবরই বাউন্সি হয়ে থাকে। আর এ বিষয়টি আশা যোগাচ্ছে সৌম্যকে। নির্বাচকরাও একই কারণে তার উপর আস্থা রেখেছেন। তবে জবাব দিতে চাইলেও নতুন কন্ডিশনে শক্ত প্রতিপক্ষের বিপক্ষে কঠিন কাজই সামনে অপেক্ষায়, তা বেশ জানা সৌম্যর।

আরটি/ক্যাট

print
 

আলোচিত সংবাদ

nilsagor ad