অস্ট্রেলিয়ানদের বিভ্রান্তিতে ফেলে দিলেন বাংলাদেশের স্পিন কোচ!

ঢাকা, শনিবার, ১৬ ডিসেম্বর ২০১৭ | ১ পৌষ ১৪২৪

অস্ট্রেলিয়ানদের বিভ্রান্তিতে ফেলে দিলেন বাংলাদেশের স্পিন কোচ!

পরিবর্তন প্রতিবেদক ৬:০৩ অপরাহ্ণ, সেপ্টেম্বর ০১, ২০১৭

print
অস্ট্রেলিয়ানদের বিভ্রান্তিতে ফেলে দিলেন বাংলাদেশের স্পিন কোচ!

এমনিতেই প্রথম টেস্টে হেরে তোপের মুখে আছেন অস্ট্রেলিয়ান ক্রিকেটাররা। এর মধ্যে তাদের মাথায় জটিল ধাঁধা ঢুকিয়ে দিলেন বাংলাদেশের সদ্য নিযুক্ত স্পিন কোচ সুনীল যোশি। অসি ব্যাটসম্যানদের বিশেষ দুর্বলতা আবিষ্কার করেছেন এ ভারতীয়। নির্দিষ্ট এক ধরনের ডেলিভারি নাকি খেলতেই পারেন না এই শক্তিধর দলের ব্যাটসম্যানরা! রহস্য বটে! যোশি সেই রহস্যে ফেললেন চট্টগ্রাম টেস্ট জিতে সিরিজ ড্র করে মান বাঁচাতে মরিয়া স্টিভেন স্মিথের দলকে। তবে সেই রহস্য স্পিন ডেলিভারি বা গোপন অস্ত্রটা কি তা যোশির মুখ থেকে বের করতে পারেননি অস্ট্রেলিয়ান সাংবাদিকরা! বড় বিভ্রান্তিতেই পড়ার কথা অসিদের!

.

গত ফেব্রুয়ারি-মার্চে ভারতে চার ম্যাচের টেস্ট সিরিজ খেলেছে অস্ট্রেলিয়া। সেবার প্রথম টেস্টে হারের পর পরের তিন টেস্টের দুটিতে জয় তুলে সিরিজ ২-১ এ জিতে নেয় ভারতই। ঘরের মাঠে খুব কাছ থেকেই সে ম্যাচগুলো দেখেছেন যোশি। আর তখনই খুঁজে খুঁজে বের করেছেন অসি ব্যাটসম্যানদের বিশেষ দুর্বলতা, বিশেষ এক ডেলিভারিতে! রবিচন্দ্রন অশ্বিন-রবীন্দ্র জাদেজাদের সেই গোপন অস্ত্রটি এবার ব্যবহার করিয়েছেন বাংলাদেশের স্পিনারদের দিয়ে। এমনটাই দাবি যোশির। আর ঢাকার ঐতিহাসিক টেস্ট জয়ে ওই রহস্য বা গোপন ডেলিভারির নাকি বিশেষ ভূমিকা।

গত সপ্তাহেই বাংলাদেশ দলের কোচিং স্টাফ টিমে যুক্ত হয়েছেন যোশি। যোগ দিয়েই সাফল্য। শুক্রবার ৪৭ বছর বয়সী এ কোচ বলেছেন, ‘একটা বিশেষ ডেলিভারি আছে যেটা খেলতে অনেক সংগ্রামের মুখে পড়ে অস্ট্রেলিয়ানরা। তবে আমি বলতে চাইনা কি সে ডেলিভারি। কারণ আমি চাইনা সিরিজ শেষ হওয়ার আগে তারা কোনো পাল্টা পরিকল্পনা করুক। আমি এটা ধরতে পেরেছি যখন তারা ভারতে টেস্ট ম্যাচ খেলছিলো। আমি বারবার বাংলাদেশি বোলারদের এই ডেলিভারিটা করে যেতে বলেছি আর তাতে কাজও হয়েছে।'



শুধু তাই নয় এ অস্ত্র আবিস্কারের গল্পটিও বললেন যোশি। বর্ডার-গাভাস্কার টেস্ট সিরিজে অশ্বিন-জাদেজার বোলিংয়ের ভিডিও ফুটেজ বিশ্লেষণ করেই এ অস্ত্র পেয়েছেন বলে জানান তিনি। তবে প্রযুক্তির এ যুগে যোশি যদি ভিডিও ফুটেজ বিশ্লেষণ করে এ অস্ত্র পান তাহলে অস্ট্রেলিয়ান বিশ্লেষকরাও খুঁজে পাবেন বলে ধরে নেওয়া যায়। আর সেক্ষেত্রে অসিরা বিভ্রান্ত না হয়ে উল্টো সতর্কই হতে পারে।  এর মধ্যেই তারা তা হয়েছে বলেও জানিয়েছে অস্ট্রেলিয়ান গণমাধ্যম। কারণ ভারত সিরিজ থেকে শুরু করে বাংলাদেশের বিপক্ষে প্রথম টেস্ট ম্যাচ পর্যন্ত কিছুটা দ্রুতগতির সোজা বল খেলতে গিয়ে বেশি ভুগেছেন অস্ট্রেলিয়ান ব্যাটসম্যানরা। আর তা নিয়ে বিশেষ কাজ করছেন বলে জানিয়েছেন বাংলাদেশের বিপক্ষে প্রথম ইনিংসে ৪১ রান করা মূলত স্পিনার অ্যাস্টন অ্যাগার।

প্রসঙ্গত, ভারত সিরিজ থেকে বাংলাদেশের প্রথম টেস্টের সোজা স্কিড করা বলে ভুগেছেন অসিরা। এ বলটি বেশি কার্যকর হয় যখন বাঁহাতি ব্যাটসম্যানের বিপক্ষে একজন ডানহাতি অফ স্পিনার বল করে। আবার বাঁহাতি অর্থোডক্স স্পিনার যখন এমনই বল করেন ঠিক সমান বিপদে পড়েন ডানহাতি ব্যাটসম্যানরা। মিরপুর টেস্টে পাঁচ অসি ব্যাটসম্যান এলবিডাব্লিউর ফাঁদে পড়েছেন সোজা স্কিড করা বলে। প্রথম ইনিংসে ডেভিড ওয়ার্নার ও ম্যাথু ওয়েড দুইজনই আউট হয়েছেন অফি মেহেদী হাসান মিরাজের বলে। আর বাঁহাতি সাকিব আল হাসানের বলে আউট হয়েছেন পিটার হ্যান্ডসকম্ব ও ন্যাথান লায়ন। দ্বিতীয় ইনিংসে একই ঢঙে মিরাজের বলে আউট হয়েছেন ম্যাট রেনশ।

আরটি/ক্যাট

print
 

আলোচিত সংবাদ

nilsagor ad