নিজের সমস্যার সমাধান নিজেই করছেন সৌম্য

ঢাকা, বুধবার, ১৮ অক্টোবর ২০১৭ | ৩ কার্তিক ১৪২৪

নিজের সমস্যার সমাধান নিজেই করছেন সৌম্য

পরিবর্তন প্রতিবেদক ৬:৪৮ অপরাহ্ণ, জুলাই ১৭, ২০১৭

print
নিজের সমস্যার সমাধান নিজেই করছেন সৌম্য

দারুণ ফর্ম নিয়েই ইংল্যান্ডে চ্যাম্পিয়ন্স ট্রফিতে খেলতে গিয়েছিলেন সৌম্য সরকার। তবে প্রথম ম্যাচে ২৮ রানের ইনিংসের পরের ৩ ম্যাচ মিলিয়ে করেছেন মাত্র ৬! এর কিছুদিন আগেও ধারাবাহিক ব্যর্থতার পরও সৌম্যকে দলে রাখা নিয়ে নানা কথা চলছিল। সেই পালে চ্যাম্পিয়ন্স ট্রফির পারফরম্যান্স হাওয়া দেয়েছে আবার। ফলে তার দলে থাকা নিয়েও উঠেছে নানা গুঞ্জন, চলছে নানা সমালোচনা। তবে গুঞ্জন কিংবা সমালোচনায় কান না দিয়ে নিজেই  সমস্যা সমাধানের কাজে নেমেছেন তিনি। কারো সাহায্য-সহায়তা নিয়ে নয়, নিজের সমস্যা নিজেই বের করার প্রত্যয় ঝরছে সৌম্যর কণ্ঠে।

অথচ চ্যাম্পিয়ন্স ট্রফি শুরুর ঠিক অল্প কিছুদিন আগে আয়ারল্যান্ডে তিন জাতি টুর্নামেন্টের চার ম্যাচে ২টি হাফ সেঞ্চুরি করেছিলেন বাঁহাতি স্টাইলিশ ওপেনার। এর আগে শ্রীলঙ্কা সিরিজে ঐতিহাসিক টেস্ট জয়ে ছিল দারুণ অবদান। খারাপ সময় পেছনে ফেলে গত নিউজিল্যান্ড সিরিজ থেকেই দারুণ খেলে ফেরার সঠিক পথেই ছিলেন তিনি। হয়তো খুব ধারাবাহিক নয়। তারপরও একটা ছন্দ ছিল। সেই লয়ে মানুষের প্রশংসা কুড়ানোর পর আবার সমালোচনার বাণে বিদ্ধ।

কি এয এক গোলকধাঁধা! তবে বিশ্বাস না হারিয়ে সোমবার মিরপুরে নিজেকে নিজেই বিশ্লেষণ করে শোনালেন সৌম্য, ‘একদিন ভালো করছি, একদিন হচ্ছে না। চ্যাম্পিয়ন্স ট্রফিতে খারাপ করেছি তার আগের সিরিজটা আবার ভালো করেছি। সবাই নানা কথা বলছে। আমি শুনছি না। নিজেই উপলব্ধি করছি আমার সমস্যা আমাকেই বের করতে হবে।’

চ্যাম্পিয়ন্স ট্রফিতে এবার কিছুটা দৃষ্টিকটুভাবেই আউট হয়েছেন সৌম্য। তার ফুটওয়ার্ক নিয়েও প্রশ্ন উঠেছে। স্ট্যাটিক ফুটওয়ার্ক চোখে লেগেছে অনেকের। তবে সৌম্য এসব মানতে নারাজ। নিজের সমস্যা নিয়ে বললেন, ‘নিয়মিত যদি একই রকম আউট হতাম, তাহলে বুঝতাম আমার ওই একই সমস্যা। কিন্তু আউটগুলো একরকম নয়। এইজন্য সমস্যাটা ভিন্ন। আমি চেষ্টা করি সমস্যাগুলো সমাধান করার। আমাকে রান করতে হবে। এটাই এখন আমার সবচেয়ে বড় চ্যালেঞ্জ।’

ব্যাটসম্যান সৌম্যর প্রতিভা নিয়ে সন্দেহ প্রকাশ করেন না নিন্দুকরাও। আগ্রাসী ব্যাটিং সৌম্যর পছন্দ। মাঝে মধ্যেই অতিরিক্ত আক্রমণাত্মক হতে গিয়ে ব্যর্থ হন। আর তখন তার ব্যাটিং সামর্থ্য নিয়ে উঠে যায় প্রশ্ন! সৌম্যর উপলব্ধি অবশ্য, ‘চ্যাম্পিয়ন্স ট্রফিতে ইংল্যান্ডের বিপক্ষে কিছুক্ষণ ক্রিজে ছিলাম। বাকি ম্যাচগুলো দ্রুত আউট হয়ে গেছি। আমার খেলার ধরণটাই এমন। যখন রান করি তখন ব্যাটিং দেখতে হয়তো ভালো লাগে। যখন রান না পাই তখন হয়তো ব্যাটিংটা দেখতে বাজে লাগে।’

তবে খারাপ সময় কিভাবে পার করতে হয় তা জানেন সৌম্য। কারণ ২০১৫ সালে দক্ষিণ আফ্রিকা সিরিজে ইনজুরিতে পড়ার পর মাঠে ফিরে নিজের স্বাভাবিক ছন্দে ছিলেন না তিনি। ঘরোয়া লিগেও ব্যাট চলছিল না। মুখভার করে বহুদিন চলা সৌম্যর চেহারায় অস্ট্রেলিয়ার কন্ডিশনিং ক্যাম্পের পর নিউজিল্যান্ড সফরে গিয়ে ফোটে হাসি। তার ভক্তরা শুধু নয়, ক্রিকেটবোদ্ধাদের অনেকেও কিন্তু সৌম্যর ব্যাটের সাথে তার সেই হাসিটাই দেখতে চান নিয়মিত।

আরটি/ক্যাট

print
 

আলোচিত সংবাদ

nilsagor ad