সাকিবের অভাব পূরণ হবে কিভাবে?

ঢাকা, সোমবার, ২৫ জুন ২০১৮ | ১০ আষাঢ় ১৪২৫

সাকিবের অভাব পূরণ হবে কিভাবে?

পরিবর্তন প্রতিবেদক ৫:০৬ অপরাহ্ণ, মার্চ ০৪, ২০১৮

print
সাকিবের অভাব পূরণ হবে কিভাবে?

আঙুলের ইনজুরি সেরে না ওঠায় শেষ পর্যন্ত নিদাহাস ট্রফিতেও খেলা হচ্ছে না নিয়মিত অধিনায়ক সাকিব আল হাসানের। দলের সেরা খেলোয়াড়কে হারিয়ে কিছুটা হলেও দুশ্চিন্তায় কোচ-ম্যানেজার থেকে শুরু করে দলের সকল খেলোয়াড়। সাকিবকে মিস করবেন ভারপ্রাপ্ত অধিনায়ক মাহমুদউল্লাহও। দীর্ঘদিন পর দলে ফেরা নুরুল হাসান সোহান রোববার বিমানবন্দরে তো বলেই দিলেন, সাকিবের অভাবটা অপূরণীয়। তবে দলের সবাই নিজেদের সেরা পারফরম্যান্সটা দিতে পারলে সাকিবের অভাবে দলে আহামরি কোনো প্রভাব পরবে না বলেই মনে করেন পেসার রুবেল হোসেন।

তিন সংস্করণেই বাংলাদেশের সেরা খেলোয়াড় সাকিব। বিশ্বসেরা অল রাউন্ডার তিনি টি-টুয়েন্টি বাদে অন্য দুই সংস্করণের ক্রিকেটে। তবে টি-টুয়েন্টিতে তার গুরুত্ব একটু বেশিই। কারণ বিশ্বের প্রায় সবগুলো ফ্র্যাঞ্চাইজি টি-টুয়েন্টি লিগে খেলেন সাকিব। অভিজ্ঞতার ঝুলিটা বড়। তবে সবাই নিজেদের সেরাটা দিতে পারলেই তার ঘাটতি পোষানো সম্ভব বলে মনে করেন পেসার রুবেল, ‘সাকিব ভাই আমাদের জন্য গুরুত্বপূর্ণ একজন খেলোয়াড়। তিনি থাকলে দলের সবার ভেতরে অন্যরকম একটা অনুভব কাজ করে। তো এখন তার জায়গায় যেই খেলুক না কেন…আমাদের সব খেলোয়াড় যদি নিজেদের সেরা পারফরম্যান্স বের করে আনতে পারি, আমার কাছে মনে হয় না আহামরি কোন সমস্যা হবে।

একক নৈপুণ্যে বাংলাদেশকে অনেক ম্যাচেই জয় এনে দিয়েছেন সাকিব। ত্রিদেশীয় সিরিজে দল হিসেবে ভালো খেলে সেই ঘাটতি পুষিয়ে নিতে চান টাইগাররা। তবে কাজটা বেশ দুঃসাধ্য হলেও সবরকমের চেষ্টা করার প্রত্যয় ঝরে উইকেটরক্ষক-ব্যাটসম্যান সোহানের কণ্ঠে, ‘সাকিব ভাইয়ের অভাবটা অপূরণীয়। লক্ষ্য থাকবে যেন দল হিসেবে ভালো খেলতে পারি। তার অভাব পূরণ করা সম্ভব না, তবে চেষ্টা থাকবে যতটুকু করা যায়।
সাকিবকে মিস করা দলের জন্য বড় ক্ষতি মানছেন মাহমুদউল্লাহ। ব্যাটে-বলে দলের সেরা খেলোয়াড়। কিন্তু তার অনুপস্থিতিকে তরুণ খেলোয়াড়দের কিছু করে দেখানোর সুযোগ মনে করছেন অধিনায়ক, ‘সাকিবকে মিস করা অবশ্যই দলের জন্য ক্ষতিকর। ও আমাদের চ্যাম্পিয়ন খেলোয়াড়। অপরিহার্য খেলোয়াড়কে মিস করা অবশ্যই আমাদের জন্য কঠিন। তারপরও আমাদের সবার জন্য সুযোগ ভালো কিছু করে দেখানোর।

তবে সাকিবকে ছাড়া যে বাংলাদেশ কঠিন চ্যালেঞ্জেই পড়তে যাচ্ছে তার প্রমাণ মিলেছে সদ্য সমাপ্ত শ্রীলঙ্কা সিরিজেই। তার শূন্যতা পূরণে  একজন ব্যাটসম্যান বাড়াতে গিয়ে কম পড়েছে একজন বোলারের। আবার উল্টো বোলার বাড়াতে গিয়ে কমে ব্যাটসম্যান। এ ঝামেলায় বেশ কয়েকজন তরুণের অভিষেকও হয়। কিন্তু কাজের কাজ কিছু হয়নি। তবে সাকিবের জায়গাটা পূরণ করতে দলের বাকি খেলোয়াড়রা ছিলেন ব্যর্থ। আর সে কথাটাই পরোক্ষভাবে মনে করিয়ে দিলেন রুবেল। দলের সবার সেরাটা দিলেই সাকিবের ঘাটতি পুষিয়ে যাবে বলে মনে করেন এ পেসার।
আর এমন কথা রুবেল বলবেন না কেন? সাকিবকে ছাড়া যে বাংলাদেশ কখনো জেতেনি তাও নয়। ২০১২ সালেই ইনজুরিতে পড়ে ঘরের মাঠে ওয়েস্ট সিরিজে খেলতে পারেননি সাকিব। সেবারও সাকিবের অভাব নিয়ে অনেক কথাই উঠেছিল। কিন্তু ওয়ানডেতে ঠিকই ৩-২ ব্যাবধানে সিরিজ জিতে নিয়েছিলেন টাইগাররা। দলগত পারফরম্যান্সেই জয় পেয়েছিল বাংলাদেশ। সে দলের সদস্য ছিলেন রুবেলও। তাই এমন কথা তিনি বুঝি বলতেই পারেন।
আরটি/ক্যাট

 
.




আলোচিত সংবাদ