এজিএমে জিপিএইচ ইস্পাতের ডিভিডেন্ড অনুমোদন

ঢাকা, শনিবার, ২৪ ফেব্রুয়ারি ২০১৮ | ১২ ফাল্গুন ১৪২৪

এজিএমে জিপিএইচ ইস্পাতের ডিভিডেন্ড অনুমোদন

পরিবর্তন প্রতিবেদক ৫:৩০ পূর্বাহ্ণ, ডিসেম্বর ১১, ২০১৭

print
এজিএমে জিপিএইচ ইস্পাতের ডিভিডেন্ড অনুমোদন

পুঁজিবাজারের প্রকৌশল খাতের তালিকাভুক্ত জিপিএইচ ইস্পাতের ঘোষিত ডিভিডেন্ডের অনুমোদন দিয়েছে বিনিয়োগকারীরা। রোববার কোম্পানিটির ১১তম বার্ষিক সাধারণ সভায় (এজিএম) এ অনুমোদন দেয় বিনিয়োগকারীরা।

 

জানা যায়, বার্ষিক সাধারণ সভার সভাপতিত্ব করেন কোম্পানির চেয়ারম্যান মো. আলমগীর কবির, এছাড়াও ব্যবস্থাপনা পরিচালক মুহাম্মদ জাহাঙ্গীর আলম, অতিরিক্ত ব্যবস্থাপনা পরিচালক মো. আলমাস শিমুল, পরিচালক মো. আবদুর রউফ, মো. আশরাফুজ্জামান, মো. আব্দুল আহাদ, মো. আজিজুল হক, স্বতন্ত্র পরিচালক অধ্যাপক ডঃ মো. সালেহ্ জহুর, নির্বাহী পরিচালক (গ্রুপ) আবু বকর সিদ্দিক, নির্বাহী পরিচালক (প্ল্যান্ট) ইঞ্জি: মাদানী এম. ইমতিয়াজ হোসেন, নির্বাহী পরিচালক (এফ এন্ড বি.ডি) কামরুল ইসলাম, কোম্পানি সচিব আরাফাত কামাল এবং প্রধান অর্থ কর্মকর্তা এইচ এম আশরাফ উজ জামান সভায় উপস্থিত ছিলেন।

সভায় জিপিএইচ ইস্পাত লিমিটেডের ৩০ জুন ২০১৭ সমাপ্ত বছরের আর্থিক প্রতিবেদন, সংশ্লিষ্ট নিরীক্ষা প্রতিবেদন এবং পরিচালনা পর্ষদের প্রতিবেদন সর্বসম্মতিক্রমে গৃহীত ও অনুমোদিত হয়। এছাড়াও সভায় ২০১৬-১৭ অর্থবছরে শেয়ারহোল্ডাদের জন্য ঘোষিত ১০ শতাংশ (৫ শতাংশ নগদ ও ৫ শতাংশ বোনাস) ডিভিডেন্ড সর্বসম্মতিক্রমে অনুমোদন দেয়া হয়।

সভার সভাপতি মো. আলমগীর কবির বলেন, জিপিএইচ ইস্পাতের সাফল্য অর্জনের মূল ভিত্তি হলো একটি শক্তিশালী ব্যবস্থাপনা দল, একটি স্বতন্ত্র কর্পোরেট কাঠামো যা গ্রাহক ও কর্মচারীদের মনোভাবের উপর ভিত্তি করে প্রতিষ্ঠা করা হয়েছে। সেই সাথে কর্মদক্ষতা এবং ফলাফলের উপর লক্ষ্য রেখে সামগ্রীক খরচ ব্যবস্থাপনা এবং বাস্তবায়নের সাথে যুক্ত আছে। যার ফলে দ্রুততার সাথে আমরা আমাদের সম্ভাব্য চ্যালেঞ্জ বাস্তবায়ন এবং আমাদের শেয়ারহেল্ডারদের জন্য অধিক মুনাফা অর্জন করতে সক্ষম হয়েছি।

ব্যবস্থাপনা পরিচালক মুহাম্মদ জাহাঙ্গীর আলম বলেন, গত কয়েক বছর ধরে আমরা বাংলাদেশে একটি অত্যাধুনিক প্রযুক্তির “স্টেট অব দি আর্ট” স্টীল প্ল্যান্ট স্থাপনের জন্য নিরলসভাবে কাজ করে যাচ্ছি। তারই ধারাবাহিকতায় আমাদের নতুন প্রকল্পের কাজ এগিয়ে চলছে এবং তা নির্ধারিত সময়ের মধ্যে সম্পন্ন করার জন্য আমরা নিবিড়ভাবে প্রকল্প বাস্তবায়নের কাজ পর্যবেক্ষন করছি।

তিনি বলেন, ইতিমধ্যে বিভিন্ন চুক্তি সম্পাদন করা হয়েছে। একটি ২৩০ কে.ভি.এ পাওয়ার সাব-স্টেশন স্থাপনের কাজ এগিয়ে চলছে। প্রকৌশল এবং নির্মাণ কাজ সমূহ চলমান রয়েছে। প্রকল্প বাস্তবায়নের কাজ প্রায় এক চতুর্থাংশ সম্পন্ন হয়েছে। আমরা আশা করছি যে ২০১৮-১৯ আর্থিক বছরের মধ্যে সম্পূর্ণ প্রকল্পের কাজ শেষ হবে। নতুন প্রকল্প বাস্তবায়নের পর আমরা আমাদের উচ্চ ব্যবসায়িক সম্ভাবনা এবং শক্তিশালী গতি প্রদর্শন করতে সমর্থ হব। আমরা বর্তমান ও ভবিষ্যতের জন্য একটি শক্তিশালী, নিরাপদ এবং পরিবেশ বান্ধব বিশ্ব নির্মাণের জন্য প্রতিশ্রুতিবদ্ধ।

আলোচনায় শেয়ারহোল্ডারবৃন্দ কোম্পানির সার্বিক কার্যক্রমে সন্তুষ্টি প্রকাশ করেন এবং কোম্পানির পরিচালকগনের প্রতি অনুরোধ রাখেন যাতে এর ধারাবাহিকতা অব্যাহত থাকে এবং ভবিষ্যতে অধিক পরিমানে ডিভিডেন্ড প্রদান করতে পারে।

জেডএস/এএস

 
.

আলোচিত সংবাদ

nilsagor ad