নোয়াখালীতে স্কুলছাত্রী নিহতের ঘটনায় ৬ সহপাঠীসহ আটক ৭

ঢাকা, রবিবার, ২৩ ফেব্রুয়ারি ২০২০ | ১১ ফাল্গুন ১৪২৬

নোয়াখালীতে স্কুলছাত্রী নিহতের ঘটনায় ৬ সহপাঠীসহ আটক ৭

নোয়াখালী প্রতিনিধি ৮:০২ অপরাহ্ণ, জানুয়ারি ২১, ২০২০

নোয়াখালীতে স্কুলছাত্রী নিহতের ঘটনায় ৬ সহপাঠীসহ আটক ৭

নোয়াখালীর সোনাইমুড়ী উপজেলার বজরা ইউনিয়নের বাগান থেকে স্কুলছাত্রী তানজিলা আক্তার রিয়া (১৬) এর লাশ উদ্ধারের ঘটনায় দুই মেয়ে সহপাঠীসহ সাতজনকে আটক করেছে পুলিশ।

মঙ্গলবার সন্ধ্যা পর্যন্ত বিভিন্ন স্থানে অভিযান চালিয়ে তাদের আটক করা হয়।

আটকেরা হলেন, রশিদপুর গ্রামের মোস্তফার ছেলে হাবিব (১৬) ও একই গ্রামের মজিবুল হকের ছেলে রাকিব হোসেন (১৬), জয়নাল আবেদিন (১৬), হাফিজ (১৬), সুরাইয়া আক্তার (১৬), ফেন্সী আক্তার (১৬) ও ফুচকা বিক্রেতা ইমন (৩০)।

আটকদের মধ্যে ছয়জনই রশিদপুর উচ্চ বিদ্যালয়ের দশম শ্রেণির শিক্ষার্থী।

নিহতের বাবা আব্দুল গফুর জানান, রিয়ার শরীরে শীতের চাদরটি একটি ছোট আম গাছের সাথে ঝুলানো ছিল। লাশ থেকে বেশ দূরে তার জুতা ও স্কুলব্যাগ পাওয়া গেছে। রিয়ার গলায় দাগ রয়েছে।

রিয়াকে ওই পরিত্যক্ত বাগানে নিয়ে পরিকল্পিতভাবে হত্যা করা হয়েছে বলে অভিযোগ করেন তিনি।

তিনি আরো বলেন, মঙ্গলবার সকালে সোনাইমুড়ী থানার ওসি আবদুস সামাদ থানায় তাকে ডেকে নিয়ে একটি জিডিতে স্বাক্ষর করতে বলেন। এতে রিয়া আত্মহত্যা করেছে বলে পুলিশের ধারণার কথা উল্লেখ ছিল। তাই তিনি জিডিতে স্বাক্ষর করেন নি। তার দাবী তার রিয়াকে হত্যা করা হয়েছে। তিনি তার মেয়ের হত্যাকারীদের চিহিৃত করে আইনের আওতায় এনে ফাঁসি দাবী করেছেন।

এদিকে স্কুল ছাত্রী নিহত ও বাগান থেকে লাশ উদ্ধারের ঘটনাকে গুরুত্ব দিয়ে জেলা পুলিশ সুপার মো: আলমগীর হোসেন জেলার অতিরিক্ত পুলিশ সুপার ঘটনাটি অধিকতর তদন্তের জন্য ঘটনাস্থলে যাওয়ার নির্দেশ দিলে তিনি মঙ্গলবার সকালে ঘটনাস্থল পরিদর্শন করেন।

স্থানীয় রশিদপুর উচ্চ বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক মো: আবদুস শহীদ ও শ্রেণি সহকারি শিক্ষক হারুনুর রশিদ বলেন, তানজিনা আক্তার রিয়া পড়াশোনায় খুবই মনোযোগী ছিল। সোমবার বিদ্যালয়ের হাজিরা খাতায় দেখা গেছে সকালে সে স্কুলে উপস্থিত ছিল। দুপুরের কোনো এক সময় শিক্ষকদের কাছ থেকে ছুটি না নিয়ে সে বিদ্যালয় ত্যাগ করে। রাতে তার মৃত্যুর সংবাদ শুনে শিক্ষক শিক্ষার্থীদের মধ্যে শোকের ছায়া নেমে এসেছে।

জেলার অতিরিক্ত পুলিশ সুপার (বেগমগঞ্জ সার্কেল) মো: শাহাজাহান শেখ বলেন, জিজ্ঞাসাবাদের জন্য নিহত রিয়ার ছয় সহপাঠীসহ সাতজনকে আটক করা হয়েছে। তাদের প্রাথমিক জিজ্ঞাসাবাদে গুরুত্বপূর্ণ কিছু তথ্য পাওয়া গেছে। ঘটনার সঙ্গে আরো একজন জড়িত আছে বলে তথ্য পাওয়া গেছে। তাকে আটকের জন্য অভিযান অব্যাহত রয়েছে। তাকে আটক করার পর ঘটনার বিস্তারিত জানা যাবে।

প্রসঙ্গত, সোনাইমুড়ী উপজেলার বজরা ইউনিয়নের পূর্ব রশিদপুর গ্রামের আবদুল গফুরের মেয়ে ও স্থানীয় রশিদপুর উচ্চ বিদ্যালয়ের দশম শ্রেণির শিক্ষার্থী তানজিনা আক্তার রিয়া সোমবার সকালে বিদ্যালয়ে গিয়ে দুইটি ক্লাস করে স্কুল থেকে বাড়ীর উদ্দেশ্যে বেরিয়ে যায়। এরপর সন্ধ্যায় পূর্ব রশিদপুর গ্রামের একটি পরিত্যাক্ত বাগান থেকে তানজিনা আক্তার রিয়ার লাশ উদ্ধার করা হয়।

আইএইচএস/এএসটি

 

সমগ্রবাংলা: আরও পড়ুন

আরও