প্রশাসনের বিরুদ্ধে সাংবাদিক সম্মলনের ঘোষণা নারী ভাইস চেয়ারম্যানের

ঢাকা, বুধবার, ২৯ জানুয়ারি ২০২০ | ১৬ মাঘ ১৪২৬

প্রশাসনের বিরুদ্ধে সাংবাদিক সম্মলনের ঘোষণা নারী ভাইস চেয়ারম্যানের

ব্রাহ্মণবাড়িয়া প্রতিনিধি ১১:৩১ অপরাহ্ণ, ডিসেম্বর ১৪, ২০১৯

প্রশাসনের বিরুদ্ধে সাংবাদিক সম্মলনের ঘোষণা নারী ভাইস চেয়ারম্যানের

ব্রাহ্মণবাড়িয়ার সরাইলের পুলিশ প্রশাসনের বিরুদ্ধে নানা অভিযাগে এনে দ্রুত সাংবাদিক সম্মেলন করার ঘাষণা দিয়েছেন উপজেলা পরিষদের প্যানেল চেয়ারম্যান ও মহিলা আ’লীগের সভাপতি রোকেয়া বেগম।

শনিবার শহীদ বুদ্ধিজীবী দিবসের আলোচনা সভায় বিশেষ অতিথির বক্তব্যে তিনি এ ঘোষণা দিয়েছেন।

পুলিশ প্রশাসনের বিরুদ্ধে সাংবাদিক সম্মেলন করার ঘোষণা দিয়েছিলেন বলে বিষয়টি রোকেয়া বেগম রাতে পরিবর্তন ডটকমের কাছে স্বীকার করেছেন।

অনুষ্ঠানে ভাইস চেয়ারম্যান রোকেয়া বেগম বলেন, বর্তমান সময় কিছু কর্মকর্তা জামায়াত ও রাজাকারের উত্তরসূরীদের নিয়ে কম্বল বিতরণসহ নানা অনুষ্ঠান করেন। উনারা (প্রশাসন) মনে করেন আমরা এ গুলি বুঝি না। জানি না। আমরা সবকিছু জানি। আমি আজকের এই শহীদ বুদ্ধিজীবী দিবসের আলোচনা সভায় সকলের উদ্দেশ্যে ঘোষণা দিলাম এ সকল বিষয়ে সাংবাদিক সম্মেলন করে জাতিকে জানাব। এভাবে আর চলতে পারে না।

পরক্ষণেই বিশেষ অতিথির বক্তব্য দিতে দাঁড়ান অফিসার ইনচার্জ মো. শাহাদাত হোসেন টিটো।

তিনি বলেন, আমরা অনেক দূর দূরান্ত থেকে এখানে চাকরি করতে এসেছি। এখানে এসেই কে কি? সেটা জানা তা সম্ভব না। সম্পূর্ণ অজান্তে আমার পাশে দাঁড়িয়ে যদি কোন মাদকসেবী বা খারাপ লোক ছবি তুলে ফেলে আমার কি করার আছে? আপনারা যারা এখানর স্থায়ী বাসিন্ধা। সমাজ পরিচালনা করছেন আপনারা, আমাকে জানিয়ে সহযোগিতা করবেন। আর আমি দাঙ্গা প্রতিরোধে গ্রামে গ্রামে সভা করেছি। আপনাদের লোকজন বলেছেন, নিজেদের স্বার্থে সরাইল দাঙ্গা লাগিয়ে রাখেন কতিপয় সালিশকারক। আপনারা যদি মনে করেন এ কাজ এর চেয়ে ভাল কোনো পরিকল্পনা আছে। আমার দরজা আপনাদের জন্য খোলা। থানায় আসুন। আমাকে পরিকল্পনা দেন। আর যদি বলেন, অন্যান্য ওসিদের মত থানায় বসে ব্যবসা করতে। আমি তাই করব।

ওসি বলেন, মহিলা ভাইস চেয়ারম্যান রোকেয়া বেগম নিজ হাতে কফি বানিয়ে আমাকে খাওয়ান। হঠাৎ করে আজকে কেন এমন বক্তব্য দিলেন বুঝলাম না। আশা করি উনার ভুল ভেঙ্গে যাবে।

শনিবার রাতে সরাইল উপজেলা মহিলা ভাইস চেয়ারম্যান রোকেয়া বেগম পরিবর্তন ডটকমকে বলেন, সরাইল থানা পুলিশ উপজেলা জামায়াতের আমীরকে দিয়ে অনুষ্ঠান করে কম্বল বিতরণ করেন। অথচ আওয়ামী লীগের নেতৃবৃন্দকে তিনি দাওয়াত দেন। আমি মহিলা ভাইস চেয়ারম্যান, উপজেলা মহিলা আওয়ামীলীগের সভাপতি ও উপজেলা আওয়ামী লীগের আহবায়ক কমিটির সদস্য। এমনকি আমাকেও দাওয়াত দেননি। আমি আজই সাংবাদিক সম্মেলন করতে চেয়েছিলাম।

আলোচনা সভায় উপজেলা ভারপ্রাপ্ত নির্বাহী কর্মকর্তা ফারজানা প্রিয়াংকার সভাপতিত্ব অনুষ্ঠিত সভায় প্রধান অতিথি ছিলেন উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান রফিক উদ্দিন ঠাকুর।

এছাড়াও সভায় সরকারি কর্মকর্তা, মুক্তিযোদ্ধা, রাজনৈতিক দলের নেতা কর্মী, সাংবাদিক, শিক্ষক সহ নানা স্তরের লোকজন উপস্থিত ছিলেন।

এআরই

 

চট্টগ্রাম: আরও পড়ুন

আরও