দাওয়াত না দেওয়ায় ইউএনও’র সাথে যুবলীগ নেতার অসৌজন্যমূলক আচরণ

ঢাকা, সোমবার, ২৭ জানুয়ারি ২০২০ | ১৪ মাঘ ১৪২৬

দাওয়াত না দেওয়ায় ইউএনও’র সাথে যুবলীগ নেতার অসৌজন্যমূলক আচরণ

ব্রাহ্মণবাড়িয়া প্রতিনিধি ১১:০২ অপরাহ্ণ, ডিসেম্বর ১১, ২০১৯

দাওয়াত না দেওয়ায় ইউএনও’র সাথে যুবলীগ নেতার অসৌজন্যমূলক আচরণ

ব্রাহ্মণবাড়িয়ার আশুগঞ্জে অনুষ্ঠানে দাওয়াত না দেওয়ায় এক যুবলীগ নেতা ও ইউপি চেয়ারম্যানের বিরুদ্ধে উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তার সাথে অসৌজন্যমূলক আচরনের অভিযোগ উঠেছে।

বুধবার দুপুরে উপজেলা পরিষদ মিলনায়তনে মুক্ত দিবস উদযাপন অনুষ্ঠানে এ ঘটনা ঘটে।

প্রত্যক্ষদর্শী ও অনুষ্ঠানের আয়োজক সূত্র জানিয়েছে, ১১ ডিসেম্বর আশুগঞ্জ উপজেলার মুক্ত দিবস। উপজেলা প্রশাসন মিলনায়তনে মুক্ত দিবস উদযাপন উপলক্ষে আলোচনা সভার আয়োজন করেন। আলাচনাসভায় উপস্থিত ইউএনও নাজিমুল হায়দারের সভাপতিত্বে অতিথি ছিলেন আশুগঞ্জ উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান হানিফ মুন্সী, উপজেলা আওয়ামী লীগের আহবায়ক সফিউল্লাহ মিয়া, সদ্য ঘোষিত উপজেলা যুবলীগের আহবায়ক সাইফুর রহমান প্রমুখ।

 

 

মুক্ত দিবসের আলোচনা চলাকালে উপজেলা যুবলীগের আগের কমিটির আহবায়ক ও ইউপি চেয়ারম্যান জিয়া উদ্দিন খন্দকার সঙ্গে যুবলীগের অন্যান্য নেতাকর্মীদের নিয়ে অনুষ্ঠানস্থলে প্রবেশ করেন। প্রবেশের পর অনুষ্ঠানে কেন তাদের দাওয়াত দেওয়া হয়নি এবং কেন যুবলীগের অন্যান্য নেতাকর্মীদের (নতুন কমিটি) দেওয়া হয়েছে-এসব ইউএনও’র কাছে জানতে চান জিয়া উদ্দিন খন্দকার। এসময় জিয়া উদ্দিন খন্দকার উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা মো. নাজিমুল হায়দারের সঙ্গে অসৌজন্যমূলক আচরন করেন। জিয়া উদ্দিন এক পর্যায়ে ইউএনও রাগান্বিত করার চেষ্টা করেন।

এসময় জিয়া উদ্দিনের সঙ্গে থাকা যুবলীগের নেতাকর্মীরা মুঠোফানে এসব দৃশ্য ধারণ করেন। যুবলীগ নেতা এঘটনার পরপর ঢাকা-সিলট মহাসড়ক অবরোধ করার প্রস্তুতিও নেন। পরে আশুগঞ্জ থানা পুলিশ ঘটনাস্থলে পৌছে বিষয়টি মিমাংসার চেষ্টা করেন।

নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক কয়েকজন বলেন, যুবলীগের আহবায়ক সাইফুর রহমানসহ নতুন কমিটির নেতাকর্মীদের অনুষ্ঠানে নিমন্ত্রণ করায় ইউপি চেয়ারম্যান জিয়াউদ্দিন খন্দকার ক্ষিপ্ত হন। পরে তিনি অনুসারীদের নিয়ে অনুষ্ঠানস্থলে ইউএনওর সঙ্গে খারাপ আচরণ করেন।

মুঠোফান বন্ধ থাকায় একাধিকবার চেষ্টা করেও ইউপি চেয়ারম্যান জিয়াউদ্দিন খন্দকারের সঙ্গে যোগাযাগ করা সম্ভব হয়নি।

তবে ইউপি চেয়ারম্যান জিয়াউদ্দিন খন্দকার সাংবাদিকদের জানান, আশুগঞ্জ যুবলীগের এই কমিটি প্রশবিদ্ধ। কেন্দ্রের কোনো অনুমোদন তাদের নেই। কিন্ত ইউএনও বিতর্কিত কমিটির নেতাদের সবার নাম পদবি উল্লেখ করে মুক্ত দিবসের অনুষ্ঠানের নিমন্ত্রণপত্র পাঠিয়েছেন। আর আমাকে নিমন্ত্রণ করেছেন ইউপি চেয়ারম্যান হিসেবে। এনিয়ে তার সঙ্গে আমার কথা কাটাকাটি হয়।

ইউএনও নাজিমুল হায়দার বলেন, কেন তাদের নিমন্ত্রণ করিনি অনুষ্ঠান লোকজন নিয়ে এসে এসব জিজ্ঞেস করেন ইউপি চেয়ারম্যান। এক পর্যায়ে তিনি আমার সঙ্গে অসৌজন্যমূলক আচরণ করেন। অবশ্য অনুষ্ঠান শেষে ইউপি চেয়ারম্যান দুঃখ প্রকাশ করেছেন।

তিনি বলেন, বিষয়টি জেলা প্রশাসক স্যারকে জানানো হয়েছে।

এআরই

 

চট্টগ্রাম: আরও পড়ুন

আরও