মুক্তিযোদ্ধাদের স্বাস্থ্যসেবায় তরুণ চিকিৎসকের লাল চেয়ার!
Back to Top

ঢাকা, রবিবার, ২৯ মার্চ ২০২০ | ১৫ চৈত্র ১৪২৬

মুক্তিযোদ্ধাদের স্বাস্থ্যসেবায় তরুণ চিকিৎসকের লাল চেয়ার!

আবুল হাসনাত মোঃ রাফি, ব্রাহ্মণবাড়িয়া ৬:০৩ অপরাহ্ণ, ডিসেম্বর ১১, ২০১৯

মুক্তিযোদ্ধাদের স্বাস্থ্যসেবায় তরুণ চিকিৎসকের লাল চেয়ার!

১৯৭১ সালে ৯ মাস রক্তক্ষয়ী যুদ্ধের মধ্যে দিয়ে আমাদের স্বাধীন দেশ উপহার দিয়েছেন জাতির সর্বশ্রেষ্ঠ সন্তান বীর মুক্তিযোদ্ধারা। তাদের ঋণ কোন ভাবেই পূরণীয় নয়। এই বীর সন্তানদের প্রতি শ্রদ্ধা জানাতে ব্যতিক্রমী উদ্যোগ নিয়েছেন এক তরুণ চিকিৎসক।

বীর সন্তানদের সম্মান জানানোর জন্য ও স্বাস্থ্য সেবা নিশ্চিত করতে হাসপাতালে সংরক্ষিত একটি লাল চেয়ারে ব্যবস্থা করেছেন তরুণ চিকিৎসক ডা. মোহাম্মদ সায়েমুল হুদা। তার বাড়ি ব্রাহ্মণবাড়িয়া জেলা নবীনগর উপজেলার বিটিভিশারা গ্রামে। তিনি বীর মুক্তিযোদ্ধা প্রয়াত সামসুল হুদার ছেলে।

মুক্তিযোদ্ধা সন্তান এই তরুণ চিকিৎসক যেখানে পদায়ন হয়েছেন, সেখানে তিনি বীর মুক্তিযোদ্ধাদের স্বাস্থ্য সেবার জন্য সংরক্ষিত এই লাল চেয়ারে ব্যবস্থা করেছেন। এই বিশেষ চেয়ারে বসিয়ে তিনি বীর মুক্তিযোদ্ধাদের স্বাস্থ্য সেবা দিয়ে থাকেন। এতে স্থানীয় মুক্তিযোদ্ধারাও আনন্দিত ও গর্ববোধ করছেন।

তরুণ এই চিকিৎসক ডা. মোহাম্মদ সায়েমুল হুদা দাবি বীর মুক্তিযোদ্ধাদের জন্য প্রতিটি হাসপাতালে একটি লাল চেয়ারে ব্যবস্থা করা হউক।

জানা যায়, মুক্তিযোদ্ধা সন্তান তরুণ চিকিসক ডা. মোহাম্মদ সায়েমুল হুদা ইতিমধ্যে ব্রাহ্মণবাড়িয়া জেলার নবীনগর উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্স, সুনামগঞ্জে ধর্মপাশা উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্স ও বর্তমানে ঢাকার সাভার উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্স এ উপজেলা স্বাস্থ্য ও পরিবার পরিকল্পনা কর্মকর্তা হিসাবে কাজ করছেন। তার প্রতিটি কর্মস্থলে বীর মুক্তিযোদ্ধাদের জন্য তিনি একটি করে সংরক্ষিত লাল চেয়ারে ব্যবস্থা করেছেন। এই লাল চেয়ার বসে স্বাস্থ্য সেবা পেয়ে খুশি স্থানীয় বীর মুক্তিযোদ্ধারা।

নবীনগর উপজেলা মুক্তিযোদ্ধা কমান্ডের সাবেক ডেপুটি কমান্ডার শামসুল আলম সরকার জানান ডা. মোহাম্মদ সায়েমুল হুদা শুধু হাসপাতালে একটি লাল চেয়ার রেখে যাননি, তিনি বীর মুক্তিযোদ্ধাদের সম্মান জানিয়ে গেছেন। এমন প্রতিক্রিয়া জানান আরও অনেক বীর মুক্তিযোদ্ধা।

এই ব্যাপারে ডা. মোহাম্মদ সায়েমুল হুদা জানান, প্রতিদিন অসংখ্য রোগী হাসপাতলে  আসে। তাদের মধ্যে জাতির বীর সন্তান মুক্তিযোদ্ধারাও আসে। আমি তাদের জন্য এই লাল চেয়ারের ব্যবস্থা করেছি। এতে করে তারা এই বিশেষ চেয়ারে বসে সেবা নিতে পারবেন। এর মাধ্যমে আমরা স্বাস্থ্য বিভাগ জাতির এই বীর সন্তানের প্রতি সম্মান জানাতে পারলাম। এটাই আমাদের সার্থকতা।

তিনি আরও জানান, প্রতিটি হাসপাতালে একটি সংরক্ষিত লাল চেয়ার থাকলে বীর মুক্তিযোদ্ধারা আরও সম্মানিত হবে। তাদের বিশেষ ব্যবস্থাপনায় স্বাস্থ্য সেবা দিতে পারব।

এআর/জেডএস

 

সমগ্রবাংলা: আরও পড়ুন

আরও