বিয়ের দুই মাসেই তরুণীর রহস্যজনক মৃত্যু, স্বামী আটক

ঢাকা, বুধবার, ২৬ ফেব্রুয়ারি ২০২০ | ১৪ ফাল্গুন ১৪২৬

বিয়ের দুই মাসেই তরুণীর রহস্যজনক মৃত্যু, স্বামী আটক

চট্টগ্রাম ব্যুরো : ১১:২৭ পূর্বাহ্ণ, অক্টোবর ০৮, ২০১৯

বিয়ের দুই মাসেই তরুণীর রহস্যজনক মৃত্যু, স্বামী আটক

চট্টগ্রাম মহানগরের পাঁচলাইশের নাজির পাড়ায় শারমিন আক্তার সুমি (১৯) নামে এক গৃহবধূর রহস্যজনক মৃত্যুর খবর পাওয়া গেছে। নিহতের স্বজনদের দাবি, সুমিকে তার স্বামী গলা টিপে ও পিটিয়ে হত্যা করেছে।

চট্টগ্রাম মেডিকেল কলেজ হাসপাতাল থেকে পুলিশ লাশ উদ্ধার করে ময়নাতদন্তের জন্য মর্গে পাঠিয়েছে। এ ঘটনায় মৃতের স্বামী সোলায়মান হোসেন লিটনকে আটক করেছে পুলিশ।

চট্টগ্রাম মেডিকেল কলেজ হাসপাতাল পুলিশ ফাঁড়ির রাতের ডিউটি অফিসার এসআই শীলব্রত বড়ুয়া বলেন, রাত এগারটার দিকে চট্টগ্রাম মহানগরের পাঁচলাইশ থানার নাজির পাড়া এলাকা থেকে শারমিন আক্তার সুমি নামে এক তরুণীকে চমেকে নিয়ে আসেন স্বামীসহ তার স্বজনরা।

সেসময় তাকে অচেতন অবস্থায় দেখা যায়। চমেকের জরুরী বিভাগের কর্তব্যরত চিকিৎসক পরীক্ষা করে তাকে মৃত ঘোষণা করেন। চিকিৎসক জানান, তার মৃত্যুটা অস্বাভাবিক।

নাজির পাড়ার মানিক ভিলার নিচতলায় সুমির শ্বশুর বাড়ি। সেখান থেকেই তাকে রাতে চমেকে নেয়া হয়।

মৃত সুমির মা চেমন আরা বেগম জানান, মাত্র দুই মাস আগে সুমিকে নোয়াখালীর উত্তর শুল্লিকার কামাল উদ্দিনের ছেলে লিটনের সাথে বিয়ে দেয়া হয়। বিয়ের সময় নগদ টাকা, ফার্নিচারসহ অনেক কিছুই দেয়া হয়েছে জামাতাকে। সবকিছু করা হয়েছে সুমির সুখের জন্য। তবে সুখ চোখে দেখেনি সুমি।

চেমন আরা বেগম বলেন, বিয়ের পর থেকে সুমির উপর শাররীক-মানসিক নির্যাতন শুরু করে লিটন। ২ মাসে ৩ বার তাকে মারধর ও নির্যাতন করে। এনিয়ে শালিস বিচার হয়েছে।

সোমবার সন্ধ্যায় লিটন শশুর বাড়িতে ফোন করে জানায় সুমি অসুস্থ্য। তাকে হাসপাতালে নেয়া হচ্ছে। এখবর শুনেই চেমন আরা বেগমসহ স্বজনরা হাসপাতালে গিয়ে সুমির লাশ দেখতে পান।

সুমির মায়ের অভিযোগ, সুমিকে নির্যাতন ও শ্বাসরোধ করে হত্যা করা হয়েছে। তার গলায়ও শরীরে আঘাতে চিহ্ন আছে।

সিএমপির পাঁচলাইশ থানার অফিসার ইনচার্জ (ওসি) আবুল কাসেম ভূঁইয়া বলেন, কিভাবে মারা গেছে ময়নাতদন্তের প্রতিবেদন হাতে পেলেই জানা যাবে। তবে মৃতের পক্ষের অভিযোগের প্রেক্ষিতে তার স্বামীকে আটক করা হয়েছে।

জেএ/জেডএস/

 

সমগ্রবাংলা: আরও পড়ুন

আরও