কুমিল্লার মামলায় খালেদা জিয়ার পরোয়ানা ও হাজিরা বহাল

ঢাকা, সোমবার, ২৫ জুন ২০১৮ | ১০ আষাঢ় ১৪২৫

কুমিল্লার মামলায় খালেদা জিয়ার পরোয়ানা ও হাজিরা বহাল

কুমিল্লা প্রতিনিধি ১০:০৭ অপরাহ্ণ, মার্চ ১৪, ২০১৮

print
কুমিল্লার মামলায় খালেদা জিয়ার পরোয়ানা ও হাজিরা বহাল

নৈশকোচে পেট্রোল বোমা হামলায় আটজন নিহতের মামলায় বিএনপি চেয়ারপারসন খালেদা জিয়ার বিরুদ্ধে গ্রেফতারি পরোয়ানা ও হাজিরার নির্দেশ বহাল রেখেছেন আদালত। কুমিল্লার ৫নং আমলী আদালতের দায়িত্বপ্রাপ্ত বিচারক মো. মুস্তাইন বিল্লাহ বুধবার এ আদেশ দেন।

আদালতে উপস্থাপনের জন্য জারি করা প্রোডাকশন ওয়ারেন্ট (পিডব্লিউ) প্রত্যাহার ও জামিন আবেদনের শুনানি শেষে তিনি ২৮ মার্চে হাজিরার আগের আদেশ বহাল রাখেন।

খালেদা জিয়ার আইনজীবী কাইমুল হক রিংকু জানান, বিএনপি চেয়ারপারসনের বিরুদ্ধে থাকা গ্রেফতারি পরোয়ানায় তাকে গ্রেফতার দেখানোর আবেদন করেছিলেন ঢাকার গুলশান থানার একজন কর্মকর্তা। আদালত সেটি গ্রহণ করে পিডব্লিউ ইস্যু করে বিএনপি চেয়ারপারসনকে আদালতে উপস্থিত করার নির্দেশনা দেন।

কাইমুল হক বলেন, সেই পিডব্লিউ প্রত্যাহার ও খালেদা জিয়ার জামিনের জন্য গত ১৩ মার্চ আমরা আবেদন করি। আদালত আদেশ দিয়েছেন বলে বুধবার জেনেছি।

তিনি জানান, পিডব্লিউ প্রত্যাহার ও জামিন আবেদনের বিষয়ে কোনো আদেশ না দিয়ে শুনানির জন্য ২৮ মার্চ নির্ধারণ করেছেন আদালত। ওই তারিখই মামলার পরবর্তী শুনানির ধার্য দিন।

গত ১২ মার্চ সোমবার কুমিল্লার ৫নং আমলী আদালত খালেদা জিয়ার বিরুদ্ধে থাকা গ্রেফতারি পরোয়ানায় তাকে গ্রেফতারের আবেদন গ্রহণ করে ২৮ মার্চ আদালতে হাজির করার পরোয়ানা জারি করেন।

এর আগে এই গ্রেফতারি পরোয়ানা ২৪ এপ্রিলের মধ্যে তামিল করার নির্দেশ দিয়েছিলেন একই আদালত। বিএনপি চেয়ারপারসন খালেদা জিয়াসহ এ মামলায় ৭৭ জন আসামির মধ্যে ৪৭ জনের বিরুদ্ধে গ্রেফতারি পরোয়ানা জারি করা আছে। জামিনে আছেন ২৯ জন এবং জেলহাজতে একজন রয়েছেন।

উল্লেখ্য, বিএনপি-জামায়াতসহ ২০-দলীয় জোটের ডাকা হরতাল-অবরোধ চলাকালে ২০১৫ সালের ৩ ফেব্রুয়ারি ভোররাতে কক্সবাজার থেকে ছেড়ে আসা ঢাকাগামী আইকন পরিবহনের একটি নৈশকোচ (ঢাকা মেট্রো-ব-১৪-৪০৮০) চৌদ্দগ্রামের মিয়াবাজারসংলগ্ন জগমোহনপুর নামক স্থানে পৌঁছলে দুর্বৃত্তরা বাসটি লক্ষ্য করে পেট্রোল বোমা নিক্ষেপ করে।

এসময় বাসে ঘুমিয়ে থাকা যাত্রীরা কোনো কিছু বুঝে উঠার আগেই আগুনে পুড়ে ঘটনাস্থলে সাতজন এবং হাসপাতালে নেয়ার পর একজনসহ মোট আট যাত্রী মারা যান।

এ ঘটনায় চৌদ্দগ্রাম থানার এসআই নুরুজ্জামান হাওলাদার বাদী হয়ে পর দিন ৩ ফেব্রুয়ারি রাতে বিশেষ ক্ষমতা আইনে একটি ও বিস্ফোরক আইনে একটিসহ থানায় পৃথক দুটি মামলা দায়ের করেন। এ মামলায় খালেদা জিয়া হুকুমের আসামি।

জেএস/এমএসআই

 
.




আলোচিত সংবাদ