ঈদ কেনাকাটার চাপে নগরীতে তীব্র যানজট
Back to Top

ঢাকা, শুক্রবার, ১০ জুলাই ২০২০ | ২৫ আষাঢ় ১৪২৭

ঈদ কেনাকাটার চাপে নগরীতে তীব্র যানজট

পরিবর্তন প্রতিবেদক ৫:০৮ অপরাহ্ণ, মে ২৪, ২০১৯

ঈদ কেনাকাটার চাপে নগরীতে তীব্র যানজট

পবিত্র ঈদুল ফিতর ঘনিয়ে আসছে। যারা গ্রামে স্বজনদের সঙ্গে ঈদ করবেন, তারা একটু আগেভাগে কেনাকাটা সেরে নিতে চাইছেন।

আর এরই প্রভাব পড়েছে সড়কে। বিশেষ করে রাজধানীর নিউ মার্কেটের ফুটপাত, নামকরা মার্কেট ও শপিংমল এলাকায়। শুক্রবার ক্রেতাদের চাপে এসব এলাকায় অসহনীয় যানজট দেখা গেছে।

শুক্রবার ছিল সাপ্তাহিক ছুটির দিন। সাধারণত সপ্তাহের অন্য ৬ দিন থেকে এদিন ব্যস্ত ঢাকার চেহারা থাকে অন্যরকম। সড়কগুলো একেবারেই ফাঁকা থাকে, এক প্রান্ত থেকে অন্য প্রান্তে যাতায়াত করা যায় অনায়াসেই।

কিন্তু, ঈদকে ঘিরে রাজধানীর মার্কেট ও শপিংমলগুলোতে মানুষের ভিড় বেড়ে যাওয়ায় আজ নগরীর বিপনীবিতান এলাকাগুলোতে দেখা গেছে ভয়াবহ যানজট।

সকাল থেকেই রাজধানীর শাহবাগ আজিজ সুপার মার্কেট, বাটা সিগনাল, এলিফ্যান্ট রোড, সাইন্সল্যাব, নিউ মার্কেট, চন্দ্রিমা সুপার মার্কেট, গাউছিয়া, গ্লোব সেন্টার, হকার্স মার্কেটে ক্রেতাদের প্রচণ্ড ভিড় ছিল।

বেলা বাড়ার সঙ্গে সঙ্গে ভিড় বাড়তে দেখা গেছে। যে কারণে এই মার্কেটগুলোর আশপাশের সড়কে তীব্র যানজট লক্ষ্য করা গেছে।

ভ্যাপসা গরমে নিউ মার্কেটের সামনের রাস্তায় অসংখ্য গাড়ি দীর্ঘ সময় দাঁড়িয়ে থাকতে হয়েছে।

এ ছাড়া পান্থপথের বসুন্ধরা সিটি, নয়াপল্টনের পলওয়েল সুপার মার্কেট, গুলিস্তান সুন্দরবন স্কয়ার মার্কেট, বঙ্গবাজার, বায়তুল মোকাররম, মালিবাগ ও মৌচাকের টুইন টাওয়ার, হোসাফ শপিং সেন্টার, রাপা প্লাজা, কর্ণফুলী গার্ডেন সিটি, রাজধানী সুপার মার্কেট, যমুনা ফিউচার পার্ক, ফার্মগেট, মিরপুর, ধানমন্ডি, বারিধারা, উত্তরা, মোহাম্মদপুর, ধানমন্ডির সীমান্ত স্কয়ারসহ বিভিন্ন এলাকায় তীব্র যানজটের খবর পাওয়া গেছে।

বসুন্ধরা সিটিতে কেনাকাটা করতে আসা রেজাউল করিম বলেন, শুক্রবার রাস্তা ফাঁকা থাকলেও মার্কেট এলাকাগুলোতে প্রচণ্ড যানজট পেয়েছি। যে কারণে মার্কেটে আসার সময় অনেকক্ষণ রাস্তায় আটকে থাকতে হয়েছে। তারপরও ঈদের কেনাকাটা শেষ করলাম, ভাল লাগছে। কিন্তু, রোজা রেখে ফেরার সময় কতক্ষণ যানজটে বসে থাকা লাগে, সেটাই চিন্তা হচ্ছে।

শাহবাগের আজিজ সুপার মার্কেট সংলগ্ন সড়কেও যানজট দেখা গেছে। পাঞ্জাবির জন্য বিখ্যাত এ মার্কেটটিতে ভিড় বাড়ছে ক্রেতাদের। দূর-দুরান্ত থেকেও ক্রেতারা এসেছেন পাঞ্জাবি কিনতে। তাদের সঙ্গে থাকা গাড়ি পার্ক করতে বেগ পেতে দেখা গেছে।

মার্কেটটির কোথাও পার্কিং ব্যবস্থা না থাকায় এ ভোগান্তি। ক্রেতারা সবাই ব্যক্তিগত গাড়ি সড়ক এবং ফুটপাতেই রেখে কেনাকাটা করছেন।

অন্যদিকে বাটা সিগ্যনাল, সাইন্সল্যাব, নিউ মার্কেট এলাকায় সারি সারি গাড়ি রিক্সা যানজটের কারণে দাঁড়িয়ে থাকতে দেখা গেছে।

ঢাকা কলেজের সামনে দায়িত্বরত এক ট্রাফিক পুলিশ বলেন, এখন থেকে প্রতিদিনই মার্কেট কেন্দ্রিক এলাকাগুলোতে যানজট একটু থাকবেই। আর ছুটির দিনে তা আরও বেশি হবে।

রাজধানীর কয়েকটি মার্কেট কমিটির সঙ্গে যোগাযোগ করে জানা গেছে, সামনের দিনগুলোতে সাপ্তাহিক বন্ধ হিসেবে আর বন্ধ থাকবে না। এখন থেকে টানা শপিংমল মার্কেট খোলা থাকবে। বিভিন্ন মার্কেটের সামনে এই সংক্রান্ত নোটিস ঝুলতেও দেখা গেছে।

পিএসএস/আইএম

 

: আরও পড়ুন

আরও