লাগাতার ফ্লপ ছবি, তাই বিয়ে করে প্রবাসী জনপ্রিয় নায়িকা

ঢাকা, শুক্রবার, ২১ ফেব্রুয়ারি ২০২০ | ৯ ফাল্গুন ১৪২৬

লাগাতার ফ্লপ ছবি, তাই বিয়ে করে প্রবাসী জনপ্রিয় নায়িকা

পরিবর্তন ডেস্ক ৩:০৭ অপরাহ্ণ, জানুয়ারি ২২, ২০২০

লাগাতার ফ্লপ ছবি, তাই বিয়ে করে প্রবাসী জনপ্রিয় নায়িকা

মধ্যবিত্ত মরাঠি পরিবারের মেয়েটির ইচ্ছে ছিল চিকিৎসক হওয়ার। কিন্তু হয়ে গেলেন অভিনেত্রী। ইন্ডাস্ট্রিতে প্রতিষ্ঠিত হয়ে যাওয়ার পরে আর পুরনো স্বপ্নের কাছে ফিরে যাওয়া হয়নি। লাইট সাউন্ড ক্যামেরার জগতেও তিনি প্রতিভার পরিচয় রেখেছিলেন। এখন অবশ্য কাজল কিরণের নাম বিস্মৃত দর্শক-মনে।

কাজলের জন্মগত নাম সুনীতা কুলকার্নি। জন্ম ১৯৫৮ সালের ১৮ অক্টোবর। তার ভাইয়ের নাম রবি কুলকার্নি। সেন্ট জোসেফ হাই স্কুলের ছাত্রী কাজলকে ছবিতে অভিনয়ের প্রথম সুযোগ দেন পরিচালক নাসির হুসেন। ১৯৭৭ সালে মুক্তি পায় কাজল কিরণের প্রথম ছবি ‘হাম কিসি সে কম নেহি’। ছবিতে দু’জন নায়ক ঋষি কপূর এবং তারিক আলি খানের বিপরীতে নবাগতার অভিনয় দর্শকদের নজর কাড়ে।

প্রথম ছবি বক্স অফিসে সুপারহিট হওয়ায় কাজলের অভিনয়ের সুযোগ পেতে সমস্যা হয়নি। ১৯৮০ সালে তিনি অভিনয় করেন ‘মাং ভরো সজনা’ ছবিতে। তিনি এই ছবিতে জিতেন্দ্রর নায়িকা ছিলেন। ছবিতে ছিলেন রেখা, মৌসুমী চট্টোপাধ্যায়ের মতো তারকাও।

কয়েক বছর পরে অভিনয়ের সুযোগ মিঠুন চক্রবর্তীর বিপরীতে। ১৯৮১ সালে মুক্তি পায় থ্রিলার ‘বারদাত’। তারকা মিঠুনের সঙ্গে পরের ছবি ছিলো ‘হাম সে বাড়কর কৌন’। দু’টোই বক্স অফিসে দুর্দান্ত সাফল্য পায়। ক্রমশ ইন্ডাস্ট্রিতে পায়ের তলায় শক্তি জমি পান কাজল কিরণ।

সাফল্যের পাশাপাশি এল ব্যর্থতার স্বাদও। ১৯৮৩ সালে মুক্তি পায় কাজল কিরণের ‘হাম সে হ্যায় জমানা’। বহু তারকাখচিত হলেও বক্স অফিসে লক্ষ্মীলাভ অধরাই থেকে যায় সে ছবির। পরে এর গানগুলো জনপ্রিয় হয়।

পরপর বেশ কিছু ছবি মুখ থুবড়ে পড়লে কাজল কিরণ সরে আসেন দক্ষিণী ছবিতে। কন্নড়, মালয়লম এবং তামিল ভাষার ছবিতে অভিনয় করে তিনি হারানো স্টারডম অনেকটাই ফিরে পান।

ফের বলিউডে ফিরে আসেন কাজল কিরণ। তবে আগের জনপ্রিয়তা আর খুঁজে পাননি তিনি। ১৯৮৬ সালে তিনি সহঅভিনেত্রীর ভূমিকায় অভিনয় করেন ‘ঘর সংসার’ ছবিতে। বক্স অফিসে হিট হলেও ছবির মূল আকর্ষণ হয়ে দাঁড়ায় জিতেন্দ্র-শ্রীদেবী জুটি। আড়ালেই চলে যান কাজল কিরণ।

পার্শ্বচরিত্রে অভিনয় শুরু হলেও কাজল কিরণ আবার নায়িকার ভূমিকায় সুযোগ পান। ১৯৮৭ সালে মুক্তি পায় ‘মুকদ্দার কা ফয়সালা’। এই ছবিতে নায়িকা ছিলেন কাজল কিরণ। কিন্তু এ ছবি বক্স অফিসে সফল হয়নি।

এরপর শুধুই ব্যর্থতার পালা। লাগাতার ফ্লপের বোঝা সহ্য করতে না পেরে কাজল কিরণ ছবির দুনিয়া থেকে সরে যাওয়ার সিদ্ধান্ত নেন। কারণ তার কাছে এবার যা সুযোগ আসছিল, তা সবই ছিল ‘বি গ্রেডেড’ হরর মুভির।

সে রকম কিছু ছবিতে তিনি অভিনয় করেওছিলেন। কিন্তু অতীতের জনপ্রিয় নায়িকা এই ধরনের কাজে সন্তুষ্ট থাকতে পারছিলেন না। ফলে তিনি কেরিয়ারকে বিদায় জানিয়ে বিয়ে করার সিদ্ধান্ত নেন। ১৯৭৭ থেকে ১৯৯০ অবধি ১৩ বছরের কেরিয়ারে তিনি মোট ৪৪টি ছবিতে অভিনয় করেছেন।

১৯৯০ সালে বিয়ে করেন কাজল কিরণ। তার অভিনীত শেষে পাঁচটি ছবি ‘দিওয়ানে’, ‘কুরবানি রং লায়েগি’, ‘রাজু দাদা’, ‘আঁখেরি সঙ্ঘর্ষ’ মুক্তি পেয়েছিল তার অভিনয়কে বিদায় জানানোর পরে।

ছবিতে অভিনয় ছেড়ে দেওয়ার পরে কাজল কিরণ কার্যত স্বেচ্ছা নির্বাসনে চলে যান। সংবাদ মাধ্যম থেকেও হারিয়ে যায় তার নাম। কাকে বিয়ে করলেন অতীতের জনপ্রিয় এই নায়িকা? জানা যায় না সেটাও।

এখন কাজল কিরণ নেদারল্যান্ডস-প্রবাসী। থাকেন দ্য হেগ-এ। তার স্বামী ডাচ নাকি ভারতীয় বংশোদ্ভূত, ধোঁয়াশা রয়েছে সে বিষয়েও। সম্প্রতি তার এক অনুরাগী সোশ্যাল মিডিয়ায় দাবি করেছেন, নেদারল্যান্ডসে জমিয়ে সংসার করছেন প্রাক্তন নায়িকা কাজল কিরণ। তার দুই মেয়ের নাম মীনাক্ষী এবং সুদক্ষিণী।

তথ্য: এবিপি

ইসি/

 

তারায় তারায়: আরও পড়ুন

আরও