শাড়ি কিভাবে বদলে দিলো জীবনের গল্প!

ঢাকা, মঙ্গলবার, ২৫ ফেব্রুয়ারি ২০২০ | ১৩ ফাল্গুন ১৪২৬

শাড়ি কিভাবে বদলে দিলো জীবনের গল্প!

পরিবর্তন ডেস্ক ৩:০৩ অপরাহ্ণ, জানুয়ারি ১৯, ২০২০

শাড়ি কিভাবে বদলে দিলো জীবনের গল্প!

শাড়ির প্রতি টান প্রায় সব মেয়েদেরই রয়েছে। এই পোশাকের মধ্যে এমন একটা স্নিগ্ধতা ও রহস্য লুকিয়ে থাকে, যে মহিলারা বহু ক্ষেত্রেই প্রয়োজনের অতিরিক্ত শাড়ি সঞ্চয় করেন, অনেক সময় তা অবসেশনেও পরিণত হয়। কিন্তু শাড়ির প্রতি এই ভালবাসাই বদলে দিতে পারে অনেক কিছু। এবার শাড়ি মাধ্যমে বদলে যাওয়া জীবনের এক অন্যরকম গল্প নিয়ে আসছে জনপ্রিয় অভিনেত্রী শ্রীলেখা মিত্র।

ভারতীয় সংবাদ মাধ্যম ইন্ডিয়ান এক্সপ্রেসের প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, শাড়ির প্রতি নারীর ভালোবাসায় যেন বদলে দিতে পারে জীবনের গল্প। তেমনই একটি গল্প নিয়ে হাজির জি বাংলা সিনেমা অরিজিনালস– সুদক্ষিণার শাড়ি, যেখানে মুখ্য চরিত্রে রয়েছেন শ্রীলেখা মিত্র।

বাংলা অনার্সে ফার্স্ট ক্লাস ডিগ্রি নিয়ে বাড়িতেই বসে থাকতে হয় সুদক্ষিণাকে। সুন্দরী এই গৃহবধূর বিয়ের সময় তাকে তেমনই শর্ত দেওয়া হয়েছিলো। তাই তার সাংবাদিক হওয়ার স্বপ্ন অধরাই থেকে যায়। আর সে শ্বশুর-শাশুড়ি-ননদ-স্বামী ও সন্তানের সমস্ত আবদার পালনের যন্ত্র হয়ে ওঠে। এই নাভিশ্বাস ওঠা জীবনে থেকে সুদক্ষিণা বাঁচে শুধুমাত্র তার শাড়ির সংগ্রহ নিয়ে।

একটা সময় সেটা একটা পারিবারিক মজায় পরিণত হয়। প্রত্যেকেই নানা বিষয়ে তাকে ব্যঙ্গ-বিদ্রুপ করে। ঘটনাচক্রে মধ্য তিরিশের সুদক্ষিণার জীবন আমূল বদলে যায় এই শাড়িকে কেন্দ্র করেই। তার কলেজের বন্ধু এখন নামকরা সংবাদপত্রের সম্পাদক। সুদক্ষিণাকে সে বলে কিভাবে তন্তুবায় সম্প্রদায় নানা ধরনের সমস্যার মধ্যে রয়েছে। তাদের সমস্য়া নিয়ে একটি আর্টিকল লিখতে বলে সুদক্ষিণার বন্ধু।

আর সেখান থেকেই শুরু হয় গৃহবধূ সুদক্ষিণার এক অসামান্য জার্নি। তন্তুবায় সম্প্রদায়ের মেয়েদের সাথে সে কথা বলে, তাদের জন্য সে ঋণ জোগাড় করে, আর পাশাপাশি চলতে থাকে তার আর্টিকলের রসদ সংগ্রহ। এই সবকিছুই চলে পরিবারের সকলের অগোচরে। সুদক্ষিণার এই জার্নি শেষ পর্যন্ত কোথায় গিয়ে শেষ হয়, সেই নিয়েই এই গল্প।

১৯ জানুয়ারি দুপুর ১টায় জি বাংলা সিনেমা-য় সম্প্রচার হবে সুদক্ষিণার শাড়ি। সুদেষ্ণা রায় ও অভিজিৎ গুহ পরিচালিত, পদ্মনাভ দাশগুপ্ত রচিত এই টেলিছবিতে শ্রীলেখা মিত্র ছাড়াও মুখ্য় ভূমিকায় রয়েছেন বাদশা মৈত্র, অলকানন্দা রায় প্রমুখ।

এসকে/

 

তারায় তারায়: আরও পড়ুন

আরও