কেজরিওয়ালের বাসভবন ঘেরাও, বিক্ষোভ
Back to Top

ঢাকা, বুধবার, ৮ এপ্রিল ২০২০ | ২৫ চৈত্র ১৪২৬

কেজরিওয়ালের বাসভবন ঘেরাও, বিক্ষোভ

পরিবর্তন ডেস্ক ১:৪১ অপরাহ্ণ, ফেব্রুয়ারি ২৬, ২০২০

কেজরিওয়ালের বাসভবন ঘেরাও, বিক্ষোভ

দুষ্কৃতীদের তাণ্ডবে দিল্লিতে লাফিয়ে লাফিয়ে বাড়ছে মৃতের সংখ্যা। গতকাল মঙ্গলবার যেখানে মৃতের সংখ্যা ছিল ১৩, আজ বুধবার সকালে তা ২০-তে পৌঁছেছে।

অথচ তা ঠেকাতে নাকি কোনও ব্যবস্থাই নিচ্ছে না সরকার। এই অভিযোগে মঙ্গলবার মধ্যরাতে দিল্লির মুখ্যমন্ত্রী অরবিন্দ কেজরিওয়ারের বাসভবনের বাইরে জড়ো হন বহু মানুষ, যাদের মধ্যে বেশিরভাগই শিক্ষার্থী।

তারা রাজধানীতে সহিংসতা রুখতে সরাসরি মুখ্যমন্ত্রীর হস্তক্ষেপের দাবি জানান।

দেশটির আনন্দবাজার পত্রিকার খবরে বলা হয়, জামিয়া মিলিয়া ইসলামিয়া বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রাক্তন ছাত্রদের সংগঠন এবং জামিয়া কো-অর্ডিনেশন কমিটির পক্ষে মঙ্গলবার কেজরিওয়ালের বাসভবনের বাইরে বিক্ষোভের ডাক দেওয়া হয়। তাতে সাড়া দিয়ে গভীর রাতে বহু মানুষ জড়ো হন মুখ্যমন্ত্রীর বাসভবনের কাছে। জওহরলাল নেহরু বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার্থীরাও ছিলেন সেখানে। মুখ্যমন্ত্রীর বাসভবন ঘেরাও করে প্রতিবাদ জানাতে থাকেন তারা।

দাবি ওঠে, উত্তর-পূর্ব দিল্লির যে যে এলাকায় সহিংসা ছড়িয়েছে, অবিলম্বে সেখানে যেতে হবে কেজরিওয়ালকে। স্থানীয় বিধায়কদের শান্তি মিছিল বার করতে নির্দেশ দিতে হবে, যাতে যে দাঙ্গা পরিস্থিতি তৈরি হয়েছে, তাতে রাশ টানা যায়।

যে বা যাদের ইন্ধনে রাজধানীতে সহিংসার আগুন ছড়িয়েছে, তাদের বিরুদ্ধে কড়া পদক্ষেপ করতে হবে বলেও দাবি করেন বিক্ষোভকারীরা। সহিংসায় আক্রান্তরা সঠিক চিকিৎসা পরিষেবা পাচ্ছেন না বলেও অভিযোগ করেন তারা।

ভোররাত পর্যন্ত কেজরিওয়ালের বাড়ির সামনে এই বিক্ষোভ চলে। পরিস্থিতি সামাল দিতে বিশাল পুলিশ বাহিনী নামানো হয়। কথা বলে বিক্ষোভকারীদের নিরস্ত করার চেষ্টা করেন পুলিশকর্মীরা। শেষমেশ বিক্ষোভকারীদের হঠাতে পুলিশকে জলকামান ব্যবহার করতে হয়। তাতে ভোর সাড়ে ৩টা নাগাদ পরিস্থিতি কিছুটা হলেও নিয়ন্ত্রণে আসে বলে জানা গিয়েছে। শিক্ষার্থীদের মধ্য থেকে কয়েকজনকে আটক করে সিভিল লাইন্স পুলিশ স্টেশনে নিয়ে যাওয়া হয়।

এই বিক্ষোভ নিয়ে কেজরিওয়ারের দফতরের তরফে এখনও পর্যন্ত কোনও বিবৃতি প্রকাশ করা হয়নি।

তবে মঙ্গলবারই ক্ষতিগ্রস্ত এলাকার বিধায়কদের সঙ্গে একদফা বৈঠক করেন দিল্লির মুখ্যমন্ত্রী। শান্তি ফেরাতে প্রয়োজনীয় সব ব্যবস্থা নিতে নির্দেশ দেন তিনি।

তার আগে অমিত শাহের ডাকা বৈঠকেও যোগ দেন দিল্লির মুখ্যমন্ত্রী।

যার পর গতকালই সীলামপুর এলাকার পরিস্থিতি পরিদর্শনে যান জাতীয় নিরাপত্তা উপদেষ্টা অজিত ডোভাল।

এসবি

 

আন্তর্জাতিক: আরও পড়ুন

আরও