কিম-মুন ঐতিহাসিক বৈঠক চলছে

ঢাকা, সোমবার, ২৮ মে ২০১৮ | ১৪ জ্যৈষ্ঠ ১৪২৫

কিম-মুন ঐতিহাসিক বৈঠক চলছে

পরিবর্তন ডেস্ক ৯:৫২ পূর্বাহ্ণ, এপ্রিল ২৭, ২০১৮

print
কিম-মুন ঐতিহাসিক বৈঠক চলছে

উত্তর কোরিয়ার নেতা কিম জং উন ও দক্ষিণ কোরিয়ার প্রেসিডেন্ট মুন জায়ে ইনের মধ্যে ঐতিহাসিক বৈঠক শুরু হয়েছে। শুক্রবার স্থানীয় সময় সকাল সাড়ে ১০টায় দুই কোরিয়ার মধ্যবর্তী গ্রাম পানমুনজামের পিস হাউজে এ বৈঠক শুরু হয়। এর আগে কিম জং উন দক্ষিণ কোরিয়ায় প্রবেশ করেন। দুই কোরিয়া ভাগ হওয়ার পর এই প্রথম উত্তর কোরিয়ার কোনো নেতা দেশটিতে গেলেন।

আন্তর্জাতিক গণমাধ্যমগুলো বলছে, শুক্রবার সকালে সীমান্ত দিয়ে দক্ষিণ কোরিয়ায় প্রবেশ করলে কিমকে স্বাগত জানান ইন। দুই নেতার মধ্যকার বৈঠক চলবে রাত পর্যন্ত। তবে দুপুরের খাবারের জন্য বিরতি দেওয়া হবে। আর এ সময় কিম লাঞ্চ করার জন্য আবার উত্তর কোরীয় সীমান্তে চলে আসবেন। এরপর আলোচনর দ্বিতীয় পর্ব শুরু হবে।

বিবিসি জানায়, স্থানীয় সময় সকাল সাড়ে ৯টায় করমর্দনে মিলিত হন কিম জং উন ও  মুন জায়ে ইন। এ সময় কিমকে রাষ্ট্রীয়ভাবে গার্ড অব অনার দেয় দক্ষিণ কোরিয়া। পিস হাউজে অতিথি বইয়ে নিবন্ধন করতে কিমকে দেখা যায় বিবিসির সরাসরি এক প্রতিবেদনে।

উত্তর কোরীয় দলের সদস্য হিসেবে কিমের সাথে আছেন তার বোন কিম ইয়ো-জং। তাকেও করমর্দনের মাধ্যমে স্বাগত জানান দক্ষিণ কোরীয় নেতা ইন। দুই দেশের মধ্যে সম্পর্ক উন্নয়নে বেশ কিছু দিন ধরে কাজ করে যাচ্ছেন ইয়ো জং। সম্প্রতি দক্ষিণ কোরিয়ায় অনুষ্ঠিত শীতকালীন অলিম্পিকে দেশের হয়ে প্রতিনিধিত্বও করেন তিনি। এ ছাড়া নামমাত্র রাষ্ট্রীয় প্রধান কিম ইয়ং-ন্যাম এবং সামরিক কর্মকর্তাসহ কূটনীতিকরা উপস্থিত আছেন কিমের সাথে।

অন্যদিকে, দক্ষিণ কোরিয়ার প্রেসিডেন্টের সঙ্গে আছে সাত সদস্যের প্রতিনিধি দল। এর মধ্যে অন্যতম হিসেবে আছেন প্রতিরক্ষা এবং পররাষ্ট্র ও ইউনিফিকেশন (একত্রীকরণ) মন্ত্রী।

দুই দেশের মধ্যে বৈঠকের কর্মসূচি নিয়ে এর আগে দক্ষিণ কোরিয়ার প্রেসিডেন্টের মুখপাত্র ইম জং সিয়ং সাংবাদিকদের জানান, আলোচনার প্রথম দফা শেষে উভয় নেতা আলাদাভাবে দুপুরের খাবার খাবেন। এ সময় উত্তর কোরীয় নেতা তার প্রতিনিধি দলসহ নিজ দেশের সীমান্তে ফিরে আসবেন।

বৈকালিক সেশনে কিম ও মুন ‘শান্তি ও প্রগতির’ প্রতীক হিসেবে একটি পাইন গাছের চারা রোপণ করবেন। যেখানে থাকবে দুই কোরিয়ার মাটি ও পানি। এরপর পরবর্তী সেশনের আলোচনার আগ পর্যন্ত দুই নেতা একত্রে পানমুনজাম গ্রামে হাঁটবেন।

এরপর দ্বিতীয় পর্বের আলোচনা শুরু হবে এবং একটি চুক্তি ও যৌথ ঘোষণার মাধ্যমে আলোচনার পর্ব শেষ হবে। এরপর দক্ষিণ কোরিয়ার দেওয়া এক নৈশভোজে অংশ নেবেন কিম জং উন। এরপর কিমের ফিরে আসার আগ পর্যন্ত দুই নেতা ‘স্প্রিং অব ওয়ান’ (এক বসন্ত) শীর্ষক একটি ভিডিও দেখবেন।

উল্লেখ্য, আজকের এ বৈঠকের মাধ্যমে ১৯৫৩ সালে কোরীয় যুদ্ধের অবসানের পর এ প্রথম দক্ষিণ কোরিয়ার সীমান্ত অতিক্রম করলেন উত্তর কোরিয়ার কোনো নেতা। আর দুই কোরিয়ার ভাগ হওয়ার পর উভয়পক্ষের মধ্যে এটি হচ্ছে তৃতীয় বৈঠক। এর আগে ২০০০ ও ২০০৭ সালে দুই দেশের শীর্ষ নেতাদের মধ্যে বৈঠক হয়।

আরপি

আরো পড়ুন...
কিম এখন দক্ষিণ কোরিয়ায়, শুরু হতে যাচ্ছে ঐতিহাসিক বৈঠক
কিম-মুন দেখা শুক্রবার
যা যা থাকছে কিম-মুনের বৈঠকে

 
.




আলোচিত সংবাদ