যে কারণে লিবিয়ায় সেনা পাঠাতে মরিয়া তুরস্ক

ঢাকা, শুক্রবার, ২১ ফেব্রুয়ারি ২০২০ | ৯ ফাল্গুন ১৪২৬

যে কারণে লিবিয়ায় সেনা পাঠাতে মরিয়া তুরস্ক

পরিবর্তন ডেস্ক ১০:৩৫ পূর্বাহ্ণ, ডিসেম্বর ২৩, ২০১৯

যে কারণে লিবিয়ায় সেনা পাঠাতে মরিয়া তুরস্ক

লিবিয়ার জাতীয় ঐক্যমত্যের সরকারের প্রধানমন্ত্রী ফায়েজ সারাজের সঙ্গে করমর্দন করছেন তুর্কি প্রেসিডেন্ট রজব তৈয়ব এরদোয়ান

তুরস্কের ভাইস-প্রেসিডেন্ট ফুয়াদ ওকতাই বলেছেন, লিবিয়ার জাতীয় ঐক্যমত্যের সরকার চাইলে দেশটিতে সেনা পাঠাতে প্রস্তুত রয়েছে আঙ্কারা। লিবিয়ার আন্তর্জাতিকভাবে স্বীকৃত বৈধ সরকারের বিরুদ্ধে জেনারেল খলিফা হাফতারের সশস্ত্র হামলা প্রতিহত করার লক্ষ্যে তার দেশ সেখানে সেনা পাঠাতে চায় বলেও জানিয়েছেন তিনি।

এর আগে তুর্কি প্রেসিডেন্ট রজব তৈয়ব এরদোয়ানও লিবিয়ায় সেনা পাঠাতে তার সরকারের আগ্রহের কথা জানিয়েছিলেন। গত মঙ্গলবার তুরস্কের রাষ্ট্র নিয়ন্ত্রিত টিআরটি টেলিভিশন চ্যানেলে দেয়া সাক্ষাৎকারে তিনি হুমকির সুরে বলেছিলেন, “লিবিয়ায় সেনা পাঠাতে তুরস্ক কারো কাছ থেকে অনুমতি নেবে না।”

তবে ইরানি গণমাধ্যম পার্সটুডে বলছে, কিন্তু মুখে তুরস্ক সরকার যতই খলিফা হাফতারের হামলা প্রতিহত করার কথা বলুক, বাস্তবে লিবিয়ায় সেনা পাঠানোর প্রচেষ্টার পেছনে আঙ্কারার ভিন্ন উদ্দেশ্য কাজ করছে।

গত মাসে লিবিয়ার জাতীয় ঐক্যমত্যের সরকারের প্রধানমন্ত্রী ফায়েজ সারাজের আঙ্কারা সফরের সময় দুই দেশের মধ্যে তেল ও নিরাপত্তা খাতে দুটি সহযোগিতা চুক্তি স্বাক্ষরিত হয়। ওই চুক্তির বিরুদ্ধে আঞ্চলিক ও আন্তর্জাতিক অঙ্গনে প্রতিবাদ উঠলেও তা উপেক্ষা করে তুর্কি জ্বালানি মন্ত্রী ফাতিহ দোনমেজ ঘোষণা করেন, দুই দেশের মধ্যে স্বাক্ষরিত চুক্তি অনুযায়ী লিবিয়ায় তেল ও গ্যাস অনুসন্ধানের কাজ করবে তুরস্ক।

গণমাধ্যমটি বলছে, লিবিয়ার সঙ্গে চুক্তি স্বাক্ষরের আগে উত্তর সাইপ্রাসের স্বঘোষিত সরকারের প্রতি সমর্থনের অজুহাতে তুরস্ক ভূমধ্যসাগরে নিজের উপস্থিতি জোরদারের চেষ্টা করে আসছিল। কিন্তু ভূমধ্যসাগরের পূর্ব উপকূলে তুরস্কের তেল ও গ্যাস অনুসন্ধানের এই তৎপরতার বিরুদ্ধে গ্রিস, সাইপ্রাস, এমনকি মিশর পর্যন্ত প্রতিবাদ জানিয়েছে। লিবিয়ার সঙ্গে তুরস্কের স্বাক্ষরিত সাম্প্রতিক চুক্তির বিরুদ্ধে ইউরোপীয় ইউনিয়ন এবং আমেরিকাও নেতিবাচক প্রতিক্রিয়া জানিয়েছে।

কিন্তু এসব প্রতিবাদ সত্ত্বেও তুরস্ক সরকার লিবিয়ার সঙ্গে চুক্তি স্বাক্ষরের পর আরো দুটি বিপজ্জনক কাজে হাত দিয়েছে। এর একটি হচ্ছে তেল ও গ্যাস অনুসন্ধানের কাজ লিবিয়ার উপকূল পর্যন্ত নিয়ে যাওয়া এবং দ্বিতীয়টি হচ্ছে, ওই উপকূলে এই কাজ নির্বিঘ্নে করার জন্য সেখানে মোতায়েন জেনারেল খলিফা হাফতারের বাহিনী দমন করতে লিবিয়ায় সেনা পাঠানোর চেষ্টা করা। তুরস্কের এই প্রচেষ্টার বিরুদ্ধেও আঞ্চলিক ও আন্তর্জাতিক অঙ্গনে প্রতিবাদ জানানো হয়েছে। তুরস্ক লিবিয়ায় সেনা পাঠানোর যে চেষ্টা করছে তাকে ‘অত্যন্ত বিপজ্জনক ও উসকানিমূলক’ বলে বর্ণনা করেছে রাশিয়া।

রাজনৈতিক বিশ্লেষকরা বলছেন, লিবিয়ার চলমান নাজুক অবস্থার মধ্যে তুরস্ক দেশটিতে সেনা পাঠালে যুদ্ধের ডামাডোলের মধ্যে আবারো দায়েশের মতো উগ্র জঙ্গি গোষ্ঠীর উত্থান হতে পারে। বিশ্লেষকরা আরো মনে করছেন, লিবিয়ায় সেনা পাঠানোর তুর্কি প্রচেষ্টার ফলে ভূমধ্যসাগরীয় অঞ্চলে উত্তেজনা আরো বেড়ে যাবে এবং ওই সাগরে নিজের স্বার্থ আরো বেশি হাতছাড়া হয়ে যাবে আঙ্কারার।

আরপি

 

আন্তর্জাতিক: আরও পড়ুন

আরও